রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দীর্ঘ দিনের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গী তিনি। বাম আমল থেকে তৃণমূল সুপ্রিমোর সঙ্গে নানা আন্দোলন সংগ্রামে দেখা গিয়েছে তাকে। মানুষের সঙ্গে যোগযোগও নিবিড় ধনেখালির তৃণমূল প্রার্থী অসীমা পাত্র। ২০১১ সালে রাজ্যে পালাবদলের সঙ্গে সঙ্গে এই আসন থেকে প্রথমবার বিধায়ক নির্বাচিত হন তিনি। তারপর ২০১৬-তেও ধনেখালি থেকে নির্বাচিত হন তিনি। ২০২১-এও অসীমার উপরও ভরসা রেখেছে তার প্রিয় দিদি। 

নির্বাচনের মনোনয়ন পত্রতে দেওয়ার বিবরণ অনুযায়ী, হুগলির ধনেখালি বিধানসভা কেন্দ্রের প্রার্থী অসীমা পাত্রের হাতে নগদ ১ লক্ষ ৪৩ হাজার টাকার কিছু বেশি অর্থ রয়েছে। বিভিন্ন ব্যাঙ্কে রয়েছে ৩০ লক্ষ ২৭ হাজারের কিছু বেশি টাকা। স্টেট ব্যাঙ্কের ধনেখালি ব্রাঞ্চে গোল্ড বন্ড রয়েছে ৩১ হাজার টাকার। দেড় লক্ষ টাকার এলআইসি পলিসি রয়েছে অসীমার। একটি বোলেরো গাড়ি রয়েছে অসীমার, যার দাম ৩ লক্ষ ৫১ হাজার টাকার বেশি। সোনা-রুপো ও অন্যান্য গয়না যা রয়েছে এই বিদায়ী মন্ত্রীর, তার দাম ২৭ লক্ষ টাকারও বেশি। 

 

 

অস্থাবর সম্পত্তি বলতে অসীমা পাত্রের যা রয়েছে, তা একটি বাণিজ্যিক কারণে ব্যবহৃত বাড়ি, যার দাম ৮ লক্ষ টাকা। কোনও দায় বা ঋণ নেই অসীমা পাত্রের। গত আর্থিক বছরে তাঁর আয়ের পরিমাণ ছিল ১৪ লক্ষ টাকার কিছু বেশি। তার আগের বছরে এই পরিমাণ ছিল সাড়ে ৬ লক্ষ টাকার কিছু কম। রাজ্য জুড়ে বিজেপি শক্তি বৃদ্ধি করেছে ঠিকই কিন্তু ধনেখালি এবারও জিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের হাতে তুলে দেওয়ার বিষয়ে একশো শতাংশ আত্মবিশ্বাসী অসীমা পাত্র।