তাপস দাস, প্রতিনিধি, তাহলে কি এবার বাংলায় পরিবর্তন এসেই যাচ্ছে? মার্চ মাসের জনমত সমীক্ষাগুলির গড় কিন্তু তেমনই একটা হিসেব দিচ্ছে। ফেব্রুয়ারির জনমত সমীক্ষা থেকে দেখা যাচ্ছিল তৃণমূল কংগ্রেস কিছুটা হলেও এগিয়ে রয়েছে। সময় যত ঘনিয়েছে, জনমত তত বেশি করে বিজেপির পক্ষে বেড়েছে, এমন হিসেব পাওয়া যাচ্ছে সমীক্ষাগুলি থেকে। অন্তত ৬টি জনমত সমীক্ষার গড় তেমনই বলছে। 


মার্চের জনমত সমীক্ষাগুলিতে কী হিসেব পাওয়া যাচ্ছে একবার দেখে নেওয়া যাক। ইন্ডিয়া টিভি- পিপলস পালসের সমীক্ষা অনুসারে তৃণমূল কংগ্রেস পেতে চলেছে ৯৫টি আসন, বিজেপি পেতে চলেছে ১৮৩টি আসন। বাম-কংগ্রেস জোট পেতে চলেছে ১৬টি আসন। 
-----------------------------------------  


এবিপি নেটওয়ার্ক-সিএনএক্স পোলসের হিসেবে অবশ্য তৃণমূল কংগ্রেস এগিয়ে রয়েছে। এই সমীক্ষা অনুসারে তৃণমূল পেতে চলেছে ১৪১টি আসন, বিজেপি পেতে চলেছে ১৩৫টি আসন, বাম-কংগ্রেস জোট পেতে চলেছে ১৬টি আসন। 



ইন্ডিয়া টিভি-জন কি বাত-এর সমীক্ষা বলছে, বিজেপি ১৫৫টি আসন পেতে চলেছে রাজ্যে। তৃণমূল পাবে ১২৭ ও বাম-কংগ্রেস জোট ১২টি আসন, এমনই বলছে এই সমীক্ষা। 


 


প্রিয় বন্ধুর অনুমানিত হিসেব এই ভোটে বিজেপি পাবে ১৮৫টি আসন, তৃণমূল পাবে ৮২টি আসন। এই হিসেবে বাম-কংগ্রেস জোট ২৪টি আসন পাবে বলে অনুমান করা হয়েছে। 


শাইনিং ইন্ডিয়ার সমীক্ষা অনুসারে তৃণমূল কংগ্রেস এখানে মোট ১৬৮টি আসন পেয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করবে, বিজেপি পাবে ৮৯টি আসন, আর বাম-কংগ্রেস জোট পাবে ৩৫টি আসন।  


টাইমস নাও-সিভোটার সমীক্ষাও এগিয়ে রাখছে তৃণমূল কংগ্রেসকেই। তাদের হিসেব বলছে তৃণমূল ১৬০টি আসন পাবে এখানে, আর বিজেপি পাবে ১১২টি আসন। ২২টি আসন পাবে বাম-কংগ্রেস জোট। 


মার্চের বিভিন্ন সমীক্ষার আঙ্কিক গড় হিসেব অনুসারে তৃণমূল কংগ্রেস এবারের ভোটে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে না, তারা পাবে ১২৯টি আসন। বিজেপিও একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করবে না, তারা ২৯৪টির মধ্যে পাবে ১৪৩টি আসন, ম্যাজিক ফিগারের চেয়ে পাঁচটি কম। এই হিসেবে বাম-কংগ্রেস জোট মাত্র ২১টি আসন পেলেও তাদের সমর্থন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে ২১-এর সরকার গঠনে।