প্রকাশ্য সভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে 'কিম্ভূত কিমাকার', কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে 'হোঁদল কুতকুত' বলেছেন মমতা। আসলে, রাজ্যজুড়ে বিজেপি-র উত্থান অনুভব করেই পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় সৌজন্যবোধ হারিয়ে ফেলেছেন। বুধবার সোশ্য়াল মিডিয়ায় এমনই অভিযোগ আনলেন বিজেপির আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য।
 
বুধবার, হুগলির চুঁচুড়ায় নির্বাচনী জনসভা করেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। সেই সভা থেকে তিনি প্রধানমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নাম না করেই বলেন, 'এখন দেশ চালাচ্ছেন দুইজন নেতা। একজন হোঁদল কুতকুত আরেকজন কিম্ভূত কিমাকার। একজন দানব, অন্যজন দৈত্য। একজন রাবণ, অন্যজন দৈত্য।'

এরপরই পশ্চিমবঙ্গের ভারপ্রাপ্ত বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা অমিত মালব্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ওই বক্তৃতার একটি ২১ সেকেন্ডের ভিডিও ক্লিপ টুইট করেন। সঙ্গে ক্যাপশনে দাবি করেন, পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে অনিবার্য গেরুয়া উত্থান অনুভব করে 'পিসি' স্পষ্টতই বিড়ম্বিত এবং তারজন্যই এখন নামকরণ করা শুরু করেছেন। পশ্চিমবঙ্গের সংস্কৃতিমনস্ক মানুষ কখনও জনসমক্ষে এমন বক্তৃতা দেখেননি।

প্রধানমন্ত্রীকে কিম্ভূত কিমাকার এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে হোঁদল কুতকুত বলে মমতা বডি শেমিং করেছেন, বলেও অভিযোগ করেন অমিত মালব্য। দাবি করেন, বিজেপি-র উত্থানের ফলে তৃণমূল নেত্রীর মাথা খারাপ হয়ে গিয়েছে। বিজেপি নেতা তথা কেন্দ্রীয় মনত্রী বাবুল সুপ্রিয়ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্ত্ৃতার ভাষার সমালোচনা করেন।