তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ হওয়ার পর থেকেই রাজ্য জুড়ে দেখা দিয়েছে নজিরবিহীন প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ। সোনালী গুহ থেকে আরাবুল হোসেন, জটু লাহিড়িরা কেউ দল ছাড়ছেন, কেউ পার্টি অফিস ভাঙছেন। এবার সেই বিক্ষোভের আঁচ গিয়ে পড়ল শীর্ষনেত্রীর প্রধান ভরসা, একান্ত অনুগত নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের বাড়িতে। তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে সব সম্পর্ক ছেদ করলেন তাঁর জামাতা ইয়াসির হায়দর ওরফে 'টাইগার'। আগেই প্রার্থী তালিকা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় বেসুরো মন্তব্য করেছিলেন তিনি। এবার সেই সোশ্যাল মিডিয়াতেই দল ছাড়ার কথা জানালেন তিনি। প্রসঙ্গত, তাঁকেই তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরহাদ হাকিম-এর উত্তরসুরি বলে মনে করা হত।

ফেসবুকে এদিন ইয়াসির ইংরাজি ভাষায় লিখেছেন, 'সবাইকে জানাচ্ছি, তৃণমূলের সঙ্গে আমার আর কোনও সম্পর্ক নেই। তাই সবাইকে অনুরোধ তৃণমূল কংগ্রেস সম্পর্কিত কোনও বিষয়ে আর যেন আমাকে না জড়ানো হয়।' তিনি আরও জানিয়েছেন, তৃণমূল কংগ্রেস করতে গিয়ে রাজ্যের সব জেলার পার্টিকর্মী, বয়জ্য়েষ্ঠদের থেকে অনেক কিছু শিখতে পেরেছেন তিনি। তবে তৃণমূল কংগ্রেস ছাড়লেও সমাজ সেবার কাজ তিনি চালিয়েই যাবেন, বলে জানিয়েছেন তিনি। কাজেই তাঁর অন্য কোনও দলে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

শুক্রবার, গভীর রাতে সোশ্যাল মিডিয়াতেই তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী তালিকা নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন টাইগার। লিখেছিলেন, 'কয়েক বছর আগে এক জন প্রাজ্ঞ মানুষ আমায় বলেছিলেন, তারকা বা বিখ্যাত হলে সহজেই টিকিট পাওয়া যায়। তখন ওঁর কথা গুরুত্ব দিয়ে শোনা উচিত ছিল আমার। যাঁরা বছরের ৩৬৫ দিন ২৪ ঘণ্টা দলের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যান, দিনের শেষে তাঁরা উপেক্ষিতই থেকে যান। এটাই কঠোর বাস্তব।' এরপর থেকেই বেসুরো টাইগারের দল ছাড়া ও অন্য দলে যোগ দেওয়া নিয়ে জল্পনা তৈরি হয়েছিল রাজনৈতিক মহলে।

এই বিষয়ে তৃণমূল দল ও ফিরহাদ হাকিম নিজে এখনও কোনও মন্তব্য করেননি। তবে টাইগার দল ছাড়ায় স্বাভাবিকভাবেই অস্বস্তিতে পড়বে তৃণমূল কংগ্রেস। দলে এই মুহূর্তে তিন নম্বর জায়গাটাই ফিরহাদ হাকিমের বলে মনে করা হয়। তাঁকে পাশে বসিয়েই প্রার্থী ঘোষণা করেছেন মমতা। তাঁরই জামাতা প্রার্থী তালিকার সমালোচনা করে দল ছাড়ায় অন্যান্য বিক্ষুব্ধরা আরও অক্সিজেন পাবে। একইসঙ্গে বিরোধী দলগুলিও এই নিয়ে ঘাসফুল শিবিরকে বিঁধতে ছাড়বে না। তৃণমূল নেত্রীর একসময়ের ঘরের লোক সোনালী গুহ শনিবার খোলাখুলি বিজেপিতে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। আরও অনেকেই টিকিট না পেয়ে একই পথে পা বাড়িয়েছেন। ফিরহাদ হাকিমের জামাতাও কি সেই দলেই ভিড়বেন?