তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা  তাঁর কনভয়তে হামলার চালিয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় এই বার্তা দিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ভি মুরলিধরন। একই সঙ্গে হামলার একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন। ভোট পরবর্তী সন্ত্রাসের অভিযোগে ক্রমশই উত্তপ্ত হচ্ছে রাজ্য রাজনীতি। এই পরিস্থিতিতে কেন্দ্রীয় সরকার সমস্ত বিষয়টি খতিয়ে দেখতে রাজ্যে পাঠিয়েছে চার সদস্যের এই প্রতিনিধি দলকে। সে দলেই রয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়ে জানিয়েছেন তৃণমূলের গুন্ডারা পশ্চিম মেদিনীপুরে তাঁর কনভয়ের ওপর হামলা চালিয়েছে। আর গাড়ির জানলাগুলি ভেঙে দিয়েছে। তাঁর ব্যক্তিগত কর্মীদের ওপরেও হামলার চালান হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। 

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সোশ্যাল মিডিয়ায় যেছবিটি পোস্ট করেছেন সেটিতে দেখা গেছে এক দল পুরুষ লাঠি ও রড হাতে গাড়ি ঘিরে রাখে। তারপরই উইন্ডস্ক্রিন ভাঙতে থাকে। গাড়ি থেকেই ১ মিনিট ৪৩ সেকেন্ডের ভিডিওটি শ্যুট করা হয়েছিল। লাঠি ও রড হাতে এক দল মানুষকে গাড়িটির পিছনে তাড়া করতেও দেখা গেছে। দেখুন সেই ভিডিওঃ

বৃহস্পতিবার সকালে কলকাতা এসে পৌঁছেছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। মেদিনীপুর থেকে ঘাটাল যাওয়ার পথে কোতওয়ালি থানার অন্তর্গত পাঁচখুরি এলাকায় আক্রান্ত হয়েছেন মুরলীধরন। তাঁর গাড়িতে ছিলেন বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা। যদিও কোনও বিজেপি নেতা আহত হননি। তবে এলাকায় ছেড়ে তাঁরা কোনও ক্রমে পালিয়ে যান। এই ঘটনার পরি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন। তিনি বলেছেন এখানে জেলার পর শাসকদলের লোকজন অত্যাচার করছে। মহিলাদের শ্লীলতাহানির ঘটনাও ঘটছে। 

মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েই নবান্ন থেকে বড় ঘোষণা মমতার, কাল থেকে বন্ধ লোকাল ট্রেন ... Rea

রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে বাংলায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের চার সদস্যের প্রতিনিধি দল ...

যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি বলেন তাঁদের দলের কেউ এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয়। ভোটের পর এলাকা শান্ত রয়েছে। বিজেপি নেতারা এলাকায় উস্কানি দিচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

সত্যি কি ভোট সন্ত্রাসে অগ্নিগর্ভ বাংলা, Fact Check-এ ভাইরাল হওয়া সন্ত্রাসের ছবি ..

রবিবার ভোটের ফল প্রকাশিত হয়েছে। তারপর থেকেই রাজ্যে ভোট সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলে সরব হয়েছে বিজেপি। রাজ্যের সন্ত্রাসের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে ও দলীয় কর্মীদের পাশে দাঁড়িয়ে দুদিনের রাজ্য সফরে এসেছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। তাঁর অভিযোগ বিজেপির ১৪ জন ভোট সন্ত্রাসের বলি। এক লক্ষেরও বেশি মানুষ ঘরছাড়া বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। জেপি নাড্ডার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সঙ্গে দেখা করে বলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতে রক্ত লেগে রয়েছে। যদিও মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার পরেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যে শান্তির আবেদন জানিয়েছেন। হিংসার কোনও ঘটনা বরদাস্ত করা হবে না বলেও জানিয়েছে তিনি।।