দ্বিতীয় দফা ভোটের আগে একের পর এক  ঘটনায় ক্রমশই উত্তপ্ত হয়ে উঠছে পূর্ব মেদিনীপুরের রাজনৈতিক পরিস্থিতি। নন্দীগ্রামে এক বিজেপি কর্মীর স্ত্রীকে ধর্ষণ করে খুনের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে শাসক দলের বিরুদ্ধে। এবার এগরায় এক বিজেপি কর্মীকে তুলে নিয়ে গিয়ে খুনের অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। মৃত ব্যক্তির নাম  জন্মেঞ্জয় দোলুই। বাড়ি এগড়া থানার বাথুয়াড়ী অঞ্চলের দক্ষিণ পোদ্দা গ্রামে। এই খবর প্রকাশ্যে আসার পরই উত্তেজনা ছড়িয়েছে এলাকায়। 

স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্বের অভিযোগ, শাসক দল আশ্রিত দুষ্কৃতী বিকাশ বেজ ও প্রায় ২০ থেকে ২৫ জনের দল জন্মেঞ্জয়কে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে  খুন করে। ঘটনায় মারিশদা থানার ওসি অমিত দেবের যোগ রয়েছে বলেও অভিযোগ বিজেপির। এলাকায় আইন শৃঙ্খলার পরিস্থিতি নিয়ে আগেই এসপি, অ্যাডিশনাল এসপি, এসডিও ও নির্বাচনী অবজারভারকে জানানো হয়েছিল বলেও জানিয়েছে স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব। বর্তমান জন্মেঞ্জয় দোলুইয়ের দেহ এগরা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে রয়েছে।

"

এই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। এই ঘটনাকে আদি ও নব্য বিজেপির দ্বন্দ্বের ফল বলে দাবি করেছে ঘাসফুল শিবির। বিজেপি কর্মীর মৃত্যুর ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বেড়েছে। ঘটনায় আসল দোষীদের গ্রেফতার করা না হলে, বৃহত্তর আন্দোলনের হুঁশিয়ারী দিয়েছে পদ্ম শিবির। ফলে দ্বিতীয় দফা ভোটের আগে বিশেষ করে নন্দীগ্রামের ভোটের আগে এই ঘটনাগুলির পরই নির্বাচন কতটা শান্তিপূর্ণ হবে তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।