বাংলার সংযুক্ত মোর্চার ব্রিগেড নিয়ে রীতিমত খোঁচা দিলেন তৃণমূল কংগ্রেস নেতা তথা রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেন ব্রিগেড ভরানো এক কথা আর রাজ্যে ভোটে জিতে ক্ষমতা দখল করা অন্যকথা। বামেদের কিছু নির্দিষ্ট কর্মী রয়েছেন তাঁরা এখনও পর্যন্ত দলীয় নির্দেশ মেন চলেন আর নির্দেশ পালন করতেই ব্রিগেডে আসেন। কিন্তু ভোটে জিততে গেলে মানুষের পাশে থাকা অত্যান্ত জরুরি, যেটা এই রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেসই পারে বলেও জানিয়েছেনন ফিরহাদ হাকিম। 

আব্বাস সিদ্দিকি
অন্যদিকে আব্বাস সিদ্দিকি ইস্যুতে ফিরহাদ হাকিম রীতিমত কটাক্ষ করেন মোর্চাকে। তিনি বলেন, এরাজ্যে কংগ্রেস ও সিপিএম একে অপরের হাত দরে হাঁটার চেষ্টা করছিল। কিন্তু মাঝখান থেকে আব্বাস সিদ্দিকে একটা ক্র্যাচ নিয়ে এসে হাজির হয়েছে। তিনি আরও বলেন  ব্রিগেডেও স্পষ্ট হয়েছে জোটের ফাটল। কারণ মঞ্চে যখন আব্বাস সিদ্দিকি ওঠে তখন, সবাই তাঁকে স্বাগত জানায়। উপস্থিত জনতারাও আব্বাসের নামে স্লোগান তোলে। কিন্তু অধীর চৌধুরী যখন উপস্থিত হয়েছিলেন তখন এজাতীয় ঘটনা ঘটেনি। মন্ত্রীর কথায় এই ঘটনায় কিছুটা হলেও অপ্রস্তুতে পড়ে যান অধীর চৌধুরী। 

এ-টিম বি-টিম
এদিন ফিরহার হাকিম বলেন বামেরা ক্ষমতায় থাকার সময় কংগ্রেস কর্মীদের নির্বিচারে হত্যা করেছিল। ২১ জুলাই গুলি চালিয়ে ছিল। চরম অত্যাচার চালিয়েছিল। কিন্তু এখন বামেদের ভরসায় পথ চলছে কংগ্রেস। একটা সময় কংগ্রেসকে বামেদের বি টিম বলা হল, কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে কংগ্রেসই সিপিএমের এ টিমে পরিণত হয়েছে। 

মমতা ছিলেন আছেন আর থাকবেন 
ফিরহাদ হাকিম বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই রাজ্যে ক্ষমতায় ছিলেন, আছেন আর থাকবেন। আগামী দিনে আরও একবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

 

ধর্মনিরপক্ষাতা 
তৃণমূল কংগ্রেস সাম্প্রদায়িকতার রাতনীতিতে বিশ্বাস করে না। তাদের দলে সাম্প্রদায়িকতার কোনও স্থান নেই বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

ক্ষমতা রয়েছে মমতার
ফিরহাদ হাকিম বলেন, মোদীকে সরিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা যদি কারও থেকে থাকে সেটা হলেন একমাত্র মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। তিনি বলেন কংগ্রেস নেতারাই বলছেন গোটা দেশে দুর্বল হয়েছে কংগ্রেস। মোদীকে সরিয়ে দেওয়ার তেমন কোনও  উদ্যোগও কংগ্রেস নেয়নি বলেও অভিযোগ করেন তিনি। আর ২০২১ সালের নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসই ক্ষমতায় ফিরবে সেব্যাপারে তাঁরা নিশ্চিত বলেও দাবি করেছেন তিনি।