শুধু রাজ্য নয়। বঙ্গবিধানসভার ভোট ময়দান থেকে দিল্লি দখলেরও বার্তা দিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, এক পায়ে  চোট নিয়ে বাংলায় ভোট যুদ্ধে তিনি জিতবেন। আর আগামী দিনে তিনি দিল্লি দখল করবেন বলেও ঘোষণা করেছেন। একই সঙ্গে মোদী ও অমিত শাহকে নিশানা করেন মুখ্যমন্ত্রী বলেন এই রাজ্যের বাসিন্দারাই বঙ্গ শাসন করবেন। গুজরাত থেকে আসা কোনও ব্যক্তি এই রাজ্যের মসনদে বসতে পারবেন না। একই সঙ্গে এদিনও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যে চলা আট দফা নির্বাচন নিয়ে নিশানা করেন কমিশনকে। বাংলার দুটো গদ্দার বিজেপিকে দিয়ে বাংলা শাসন করাবে- এটা তিনি মেনে নেবেন না বলেও স্পষ্ট করে জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিনও তিনি নাম না করে মুকুল রায় আর শুভেন্দু অধিকারীর তীব্র সমালোচনা করেন বলেও মনে করছে রাজনৈতিক মহল। 

স্বামী-স্ত্রীর যৌথ সম্পত্তির পরিমাণ ৪ কোটি, হলফনামায় জানালেন চুঁচুড়ার বিজেপি প্রার্থী লকেট ...

স্বামী বিজেপিতে, তৃণমূলে নাম লিখিয়ে আরামবাগ থেকে টিকিট পাওয়া সুজাতার সম্পত্তির পরিমান জেনে নিন ...

হুগলিতে ভোট প্রচারে গিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানের জনসভা থেকে মমতা আরও একবার নিজেকে রয়েল বেঙ্গল টাইগার হিসেবেই বর্ণনা করেন। তারপরই তিনি বলেন, 'আমি এক পা নিয়েই বাংলা দখল করব। আর দুই পায়ে দিল্লিতে জিতব।' গুজরাতিরা বাংলা শাসন করবে না, বাঙালিরাই বাংলা শাসন করবে। বহিরাগত এনে ভোটের সময় তাণ্ডব করতে দেওয়া যাবে না। রাজ্য সরকার পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এদিনও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন আট দফা নির্বাচনের কী কোনও প্রয়োজন ছিল? বিজেপির নির্দেশেই এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। একই সঙ্গে বলেন দুটি দফাতেই এই রাজ্যে নির্বাচন করা যেত।  করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। আর তাতে বিজেপি নির্বাচন বন্ধ করে দিতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিনও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন তাঁর ও তাঁর দলের স্লোগান জয় বাংলা। যদি কোনও এজেন্টের বুথে বসতে ভয় লাগে তাহলে তাঁরা যেন আগেই নাম প্রত্যাহার করে নেন। কাপুরুষ এজেন্ট তাঁর দরকার নেই বলেও জানিয়েছেন মমতা। একই সঙ্গে মহিলাদের নির্বাচনী এজেন্ট করার ওপরেও জোর দিয়েছেন তিনি।