শুক্রবার বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়া-কে দল থেকে বহিষ্কার করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। ঠিক তার পরদিনই, শনিবার সকালে রণক্ষেত্রের চেহারা নিল বালি বিধানসভা এলাকার বেলুড় থানার অন্তর্গত লিলুয়ায়। লিলুয়ার অভ্র সেন স্ট্রিটে তৃণমূল ও বিজেপি-র মধ্যে তীব্র সংঘর্ষ বাধে। তৃণমূলের বিরুদ্ধে বোমা-গুলি ছোঁড়ার অভিযোগ। বেশ কয়েকজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বলেও জানা গিয়েছে স্থানীয় সূত্রে। এলাকায় চলছে ব়্যাফের টহল। জিটি রোডে ব্যহত হয়েছে যান চলাচল।  

বিজেপি কর্মীদের অভিযোগ, ঘটনার সূত্রপাত শুক্রবার রাতে। লিলুয়ার পাঠক বাড়ির সামনে বিজেপির এক অনুষ্ঠানে  পতাকা লাগানো-কে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়েছিল। এরপর, এদিন সকালে মর্নিং ওয়াক করতে যাওয়ার সময়ে বিজেপির এক মণ্ডল সভাপতির উপর দলবল নিয়ে চড়াও হন, এলাকার বিদায়ী কাউন্সিলর তথা তৃণমূল যুব কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক, কৈলাস মিশ্র। এমনটাই অভিযোগ করেছেন হাওড়া সদরের বিজেপি সভাপতি সুরজিৎ সাহা। ঘটনায় মণ্ডল সভাপতি সহ তিনজন বিজেপি কর্মীকে গুরুতর আহত হন। তাঁদের শ্রমজীবি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আহত বিজেপির মণ্ডল সভাপতি

এরপর বিজেপি কর্মীরা বালি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করতে গেলে কৈলাশ মিশ্র ও তাঁর দলবল ফের সেখানে উপস্থিত বিজেপি কর্মীদের মারধর করে বলে দাবি করেছে বিজেপি। সেইসময়ই ব্যাপক বোমাবাজি এবং গুলি চলে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। ঘটনায় ঠিক কতজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন, তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে বেশ কয়েকজনকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে সূত্রের খবর।  

আরও পড়ুন - নেই গুরুতর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া, বাড়ে প্রতিরোধ - কোভাক্সিন নিয়ে কী জানালো ল্যান্সেট জার্নাল

আরও পড়ুন - কলকাতায় আসার আগেই মোদীর বাংলায় টুইট, বঙ্গের ভাই-বোনদের কী বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী

আরও পড়ুন - কানে জড়িয়ে দেওয়া হল জ্বলন্ত টায়ার, পুড়ে মৃত্যু হাতির, ক্যামেরায় ধরা পড়ল চরম অমানবিকতা, দেখুন

গুলিবিদ্ধ বিজেপি কর্মী

ঘটনাস্থলে পুলিশ থেকেও কোনও ভূমিকা নেয়নি বলে অভিযোগ। পুলিশের উপস্থিতিতেই বিজেপি কর্মীদের বেধড়ক মারধর করা হয়। এরপরই টায়ার জ্বালিয়ে এক ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে জিটি রোড অবরোধ করে বিজেপির কর্মী-সমর্থকরা। পরে পুলিশের পক্ষ থেকে এলাকার দখল নএওয়া হয়। টহল দেয় ব়্যাফ বাহিনী। সর্বশেষ যে খবর পাওয়া গিয়েছে, ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছএ জিটি রোডের যান চলাচল।