বুদ্ধদেব পাত্র ও কৌশিক সেন: পুরুলিয়ার চারজন, আর উত্তর দিনাজপুরের একজন। উত্তরপ্রদেশের ভয়াবহ পথ-দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন এ রাজ্যের পাঁচজন পরিযায়ী শ্রমিক। শোকের ছায়া এলাকায়।

আরও পড়ুন: 'পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরার সমস্ত খরচ বহন করবে আমাদের সরকার', তাঁদের লড়াইকে স্যালুট জানিয়ে টুইট মমতার

অভাবের সংসার নুন আনতে পান্তা ফুরনোর দশা। বাড়তি রোজগারের আশায় ভিনরাজ্যে কাজ করতে যেতে হয় তাঁদের। কিন্তু লকডাউনের জেরে ঘটল বিপত্তি। কাজকর্ম শিকেয় উঠেছে, রোজগারও বন্ধ। পরিযায়ী শ্রমিকদের দুর্ভোগের শেষ নেই। যে যেমনভাবে পারছেন, বাড়ি ফিরে আসছেন।   

চারজনেরই বাড়ি পুরুলিয়ার মফঃস্বল থানা এলাকায়। চন্দন রাজোয়ার ও মিলন বাদ্যকার থাকেন দুমদুমি গ্রামে, আর অজিত মাহাতো ও গণেশ রাজোয়ারের বাড়ি কানালি গ্রামে। পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন, সাত-আট মাস আগে রাজস্থানে মার্বেল কাজ করতে গিয়েছিলেন তাঁরা। লকডাউনের মাঝেই অন্য পরিযায়ী শ্রমিকের সঙ্গে ট্রাকে চেপে বাড়ি ফিরছিলেন চন্দন, মিলন, অজিত ও গণেশও। সফর থেমে গেল মাঝপথেই। 

আরও পড়ুন: লকডাউনের মাঝে দোকান খুলতেই খুন পোলট্রি ব্যবসায়ী, চাঞ্চল্য বসিরহাটে

জানা গিয়েছে, শুক্রবার শেষরাতে উত্তরপ্রদেশের আউরিয়া জেলায় মিহৌলি এলাকায় জাতীয় সড়কে পরিযায়ী শ্রমিক বোঝাই ট্রাকের সঙ্গে অন্য একটি ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। ভয়াবহ দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে কমপক্ষে ২৪ জন। সেই তালিকায় নাম রয়েছে পুরুলিয়ার চারজনেরও। নিহতদের পরিবারকে দু'লক্ষ টাকা করে আর্থিক অনুদানের কথা ঘোষণা করেছেন পুরুলিয়া জেলা পরিষদের সভাধিপতি সুজয় বন্দ্যোপাধ্যায়। 

অভিশপ্ত ওই ট্রাকে ছিলেন বছর বাইশের আকবর আলিও। তাঁর বাড়ি উত্তর দিনাজপুরেরও হেমতাবাদের নওদা গ্রামপঞ্চায়েতের রামপুর গ্রামে।  জানা গিয়েছে, স্থানীয় এক বাসিন্দার মারফত রাজস্থানে প্যান্ডেলে কাজ করতে যান ওই তরুণ।  লকডাউনে আটকে পড়েছিলেন তিনি, ফেরার পথে প্রাণ হারালেন দুর্ঘটনায়।