লোকচক্ষুর আড়ালে নিভৃতে সময় কাটাতে জঙ্গলে ঢুকেছিল যুগল। তার পরই ঘটে গেল মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। বাজ পড়ে ঘটনাস্থলেই মৃত্য়ু হল দু' জনের। মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনা ঘটেছে ঝাড়গ্রামের গোপীবল্লভপুরে। 

শুধু ঝাড়গ্রামই নয়, সোমবার সারাদিনে বজ্রাঘাতে গোটা রাজ্যে অন্তত ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর। তার মধ্যে শুধুমাত্র পুরুলিয়াতেই মৃত্যু হয়েছে ৮ জনের। এছাড়াও দক্ষিণ চব্বিশ পরগণাতেও মারা গিয়েছেন তিনজন। 

পুলিশ সূত্রে খবর, ঝাড়গ্রামের বেলিয়াতোড় থানার গোপীবল্লভপুর দুই ব্লকের বিডিও অফিসের পিছনে সোনাপড়ার একটি ইটভাটা লাগোয়া জঙ্গল থেকে মঙ্গলবার সকালে এক যুবক ও যুবতীর দেহ উদ্ধার হয়। পুলিশ জানিয়েছে, তাঁদের নাম যতীন সিং(৩৩) এবং কুনকি সিং (২৫)। দু' জনের বাড়ি বেলিয়াবেড়া থানার বনকাটি এবং সোনাপড়া এলাকায়। 

স্থানীয় সূত্রে খবর, ওই দু' জনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই সম্পর্ক ছিল। মাঝেমধ্যেই ওই জঙ্গলের মধ্যে দেখা করতে আসতেন তাঁরা। সোমবার বিকেলের দিকেও তাঁদের সেখানে দেখা যায়। ঝড়বৃষ্টি এবং বজ্রপাতের পরে আলিঙ্গনবদ্ধ অবস্থায় দু' জনের মৃতদেহ উদ্ধার হয়। মৃত যুবকের বুকের কাছে অনেকটা অংশ জুড়ে পোড়া দাগ ছিল। যুবতীর শরীরেও অনেক জায়গায় পোড়া দাগ দেখা গিয়েছে। পুলিশের অনুমান, বাজ পড়েই তাঁদের মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঝাড়গ্রাম জেলা হাসপাতালে পাঠিয়ে দিয়েছে। দু' জনেই স্থানীয় ইটভাটাতে কাজ করতেন বলে জানা গিয়েছে ৷

অন্য দিকে, সোমবারই বেলা বারোটা নাগদ লালগড় থানা এলাকায় জমিতে কাজ করার সময় বাজ পড়ে মারা গিয়েছেন এক মহিলা। ঘটনাটি ঘটে ঝাড়গ্রাম জেলার লালগড়ের ভাঙ্গাডালি এলাকায়। পুলিশ জানিয়েছে মৃত ওই মহিলার নাম নীলিমা শবর (৩০)।  পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এ দিন জমিতে চারা ধান লাগানোরে কাজ করছিলেন নীলিমা শবর। দুপুর সাড়ে বারোটা নাগাদ হঠাৎ ব্জ্রপাত সহ বৃষ্টি  শুরু হয়। ওই সময়েই বাজ পড়ে মৃত্যু হয় তাঁর।