শান্তিনিকেতনে এবার প্রথা ভেঙে বন্ধ হয়েছে  বসন্তোৎসব। তাই গোটা বাংলার মুখ ভার ছিল তাই সোমবার। কিন্তু একটু খোঁজ করে যদি কেউ পুরুলিয়ার অযোধ্য়া পাহাড়ে আসতেন, তাহলে দেখতেন, রাঙামাটির দেশে কীভাবে জমে গেল দোল উৎসব।

দোল উপলক্ষে পুরুলিয়ার অযোধ্য়া পাহাড়ে ক-দিন ধরেই বেশ ভিড় জমছিল। বাগমুন্ডির অযোধ্য়া পাহাড়ের তলায় পলাশ ঘেরা বানজারা ক্য়াম্পে ক-দিন ধরেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে গুটি গুটি পায়ে হাজির হচ্ছিলেন পর্যটকরা। সোমবার দোলের দিন মানুষ দেখল, রাঙামাটির দেশে কীরকম সুন্দর এক দোল উৎসব হয়। পাহাড়ের তলায়। পলাশকে সাক্ষী রেখে। যেখানে এতটুকু অশ্লীলতা নেই। আছে শুধুই আন্তরিকতা। স্থানীয়রা মানুষ সেখানে রংবেরঙের আবীর মাখিয়ে দিচ্ছে কলকাতার মানুষের গায়ে।

কী বলছেন পর্যটকরা?

কলকাতা থেকে গিয়েছিলেন বর্ণালী ঘোষ ও প্রসেনজিৎ গুহ। এখানকার বসন্তোৎসবে ওঁরা এই প্রথমবার এলেন। আর তাতেই ফিদা হয়ে গেলেন। জানালেন, "আমরা অভিভূত। পাহাড়ের কোলে পলাশ-জঙ্গলে এই দোল আর পলাশ উৎসব খুব ভালো লাগল। প্রকৃতির কোলে এরকম বসন্ত উৎসব কোনওদিন উপভোগ করিনি।  আজ করলাম। মনে হয় বার বার  আসবো এখানে। "

বর্ণালী আর প্রসেনজিতের গায়ে আবীর মাখিয়ে দিয়ে স্থানীয় তরুণী বললেন, "আবার এসো কিন্তু।" আর তার প্রত্য়ুত্তরে ওঁরা দুজনে বললেন, "ঠিকানাটা দিয়ে গেলাম, কলকাতায় যখন আসবে, আমাদের বাড়িতে আসতে ভুলো না যেন। ভুললে কিন্তু মজা দেখিয়ে দেবো।"