মত্ত অবস্থায় দিনের পর দিন অত্যাচার করত স্বামী। দিনের পর দিন অত্য়াচার সহ্য করতে না পেরে বাপের বাড়িতে গিয়ে উঠেছিলেন। কিন্তু সেখানেও যে তাঁর স্বামী এমনকাণ্ড ঘটাবে তা হয়তো কখনও ভাবতেই পারেনি স্ত্রী। বাপের বাড়িতে গিয়ে নিজের শ্য়ালিকাকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ। বাধা পেয়ে গলার নলি কেটে শ্য়ালিকাকে খুন করল জামাইবাবু। ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্ত।

আরও পড়ুন-'আমাদের টেনশন দেবেন না, পেনশন বন্ধ হয়ে যাবে', পুলিশকে হুমকি বিজেপি নেতা রাজুর

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুরে। লস্করপাড়া এলাকায় স্ত্রীর বাপের বাড়িতে গিয়েছিল অভিযুক্ত জাকির হোসেন। তাঁর স্ত্রীকে বাড়ি ফেরানোর জন্য গিয়েছিল সে। কিন্তু সেখানে গিয়ে স্ত্রীকে দেখতে না পেয়ে রক্তচক্ষু হয় জাকিরের। সেই সময় বাড়ির ভিতরে ঘুমোচ্ছিল তাঁর শ্যালিকা। অভিযোগ, তাঁর উপরই চড়াও হয় অভিযুক্ত যুবক। প্রথমে তাঁর শ্লীলতাহানি করে। তারপরে জাকির ধর্ষণের চেষ্টা করে রাশিদা বাধা দিলে বালিশ দিয়ে তার মুখ চেপে ধরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তরুণীর শ্বাসনালী কেটে দেয় জাকির। ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন-চাকরি দেওয়ার নামে 'প্রতারণা', তৃণমূল নেতার বাড়িতে টাকা ফেরত চাইতে গেলে 'হামলা'

পুলিশ সূত্রে খবর, বছর ১০ আগে  স্থানীয় প্রতাপপুরের  বাসিন্দা পেশায় দিনমজুর জাকির হোসেন নামের ওই ব্যক্তির সঙ্গে মাজেদা বিবির সঙ্গে বিয়ে হয়। বর্তমানে দম্পতির একটি পুত্রসন্তানও আছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, সম্প্রতি  মদ্যপ অবস্থায় বাড়ি ফিরে স্ত্রীর উপর অত্যাচার করতে শুরু করে। বাধ্য হয়ে দিন পনেরো আগে ছেলেকে নিয়ে বাপের বাড়ি লস্করপুরে চলে যান জাকিরের স্ত্রী। এরপর একাধিকবার স্ত্রীকে বাড়ি ফিরে যাওয়ার কথা বলে ওই যুবক। কিন্তু তাতে কোনও লাভ হয়নি। এই পরিস্থিতিতে  শ্বশুরবাড়িতে হাজির হয় জাকির। সেখানে গিয়ে জাকির তার শ্য়ালিকাকে খুন করে বলে অভিযোগ।