রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ নতুন নয়। আর এবার সেই তালিকার নাম উঠল খোদ বুথের সেকেন্ড পোলিং অফিসারেরও! অভিযুক্ত ভোটকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জে।

আরও পড়ুন: উপনির্বাচনে মার খেলেন জয়প্রকাশ, দেখে নিন বিজেপির আর কোন কোন প্রার্থী এর আগে হেনস্তার স্বীকার হয়েছেন

গত বিধানসভা ভোটে বিধায়ক নির্বাচিত হয়েছিলেন কংগ্রেস প্রার্থী প্রমথনাথ রায়। দীর্ঘ রোগভোগের পর মে মাসে প্রয়াত হন তিনি। সোমবার সকাল থেকে উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জে।  ভোটগ্রহণ পর্ব শান্তিপূর্ণই বলা চলে। তবে শেষবেলায় খোদ সেকেন্ড পোলিং অফিসারের বিরুদ্ধে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগে চাঞ্চল্য ছড়াল কালিয়াগঞ্জের উত্তর চিরাইল পাড়ায়। তৃণমূল কংগ্রেসের অভিযোগ, উত্তর চিরাইল পাড়ায় ৪৭ নম্বর বুথে যখন লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন ভোটাররা, তখন তাঁদের বিজেপি প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার অনুরোধ করেন ওই বুথের সেকেন্ড পোলিং অফিসার কল্লোল সিনহা। ঘটনাটি জানাজানি হতেই শোরগোল পড়ে যায়। থানায় অভিযোগ দায়ের করেন স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা।  সেক্টর অফিসারের অনুমতি নিয়ে অভিযুক্ত ভোটকর্মীকে পুলিশ আটক করে নিয়ে গিয়েছে বলে জানা গিয়েছে। সত্যিই কী তিনি বুথে বসে ভোটারদের বিজেপি প্রার্থীকে ভোট দিতে বলছিলেন? অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কালিয়াগঞ্জের বিধানসভার ৪৭ নম্বর বুথের সেকেন্ড পোলিং অফিসার কল্লোল সিনহা।

আরও পড়ুন: লোক ধার দিতে চান অনুব্রত, ধন্যবাদ জানালেন সিপিএম নেতা

এর আগে সকালে কালিয়াগঞ্জে বিতর্কে জড়ান খোদ বিজেপি প্রার্থী কমল সরকার।  কোথায় ভোট দিতে হবে, ইভিএমের সামনে দাঁড়িয়ে তিনি তা স্ত্রীকে দেখিয়ে দিয়েছেন অভিযোগ।  ঘটনাটি নজরে আসতেই প্রিসাইডিং অফিসারের কাছে নালিশ জানান তৃণমূল কর্মীরা।  তাঁদের অভিযোগ, নিজের স্ত্রী হলেও, এভাবে তাঁকে প্রভাবিত করা যায় না।  কালিয়াগঞ্জের বিজেপি প্রার্থী কমল সরকারকে শোকজ করেছে নির্বাচন কমিশন। যে বুথে এই ঘটনা ঘটেছে, সেই বুথের প্রিসাইডিং অফিসারকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।   তবে স্ত্রীকে প্রভাবিত করার অভিযোগকে আমল দিতে নারাজ অভিযুক্ত কমল সরকার। তাঁর সাফাই, বরাবরই এভাবেই ভোট দেন তাঁরা।  যখন ভোট দিচ্ছিলেন, তখন ভোটগ্রহণ কক্ষে হাজির ছিলেন স্ত্রীও।