আশিষ মণ্ডল, বীরভূম: ভাড়া বাড়ি ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্তে রেহাই মিলল না। ঘর থেকে আসবাবপত্র বের করার সময়ে আক্রান্ত হলেন এক ছাত্রী ও তাঁর বাবা-মা। অভিযোগের তির বাড়ির মালিকের দিকে। ঘটনাটি ঘটেছে শান্তিনিকেতনে। তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন: স্বামীর মোবাইলে 'অশ্লীল ছবি', প্রতিবাদ করায় গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগ

জানা গিয়েছে, বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী কন্যাকী দাস। বছর খানেক আগে শান্তিনিকেতনের রতনপল্লি এলাকায় অমিতাভ দাশগুপ্ত নামে এক ব্যক্তি বাড়ি ভাড়া নেন তিনি। কিন্তু বাড়িওয়ালা সঙ্গে ভাড়াটিয়া একেবারেই বনিবনা হচ্ছিল না। ওই ছাত্রীর দাবি, ভাড়া নিয়ে বিবাদের জেরে শেষপর্যন্ত বাড়িটি ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। রবিবার সকালে যখন বাবা-মা-কে সঙ্গে নিয়ে আসবাবপত্র বের করেছিলেন, তখন চুক্তিপত্রে সই করার জন্য চাপ দিতে থাকেন বাড়ির মালিক। শুধু তাই নয়, কথা কাটাকাটির মাধে আচমকাই লাঠি দিয়ে ওই ছাত্রী ও তাঁর বাবা-মাকে বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। এরপর প্রাণ বাঁচাতে বাবা-মাকে নিয়ে শান্তিনিকেতন থানায় আশ্রয় নেন ওই ছাত্রী। মৌখিক অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে থানায়।

আরও পড়ুন: বাড়ির সামনেই গাড়ির ধাক্কা, মৃত্যু হল ৮০ বছরের বৃদ্ধর

এদিকে এই ঘটনা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিশ্বভারতীর অন্য পড়ুয়ারা। বাড়িওয়ালার সঙ্গে আক্রান্ত ছাত্রীর গণ্ডগোল চলছে, সেকথা জানতেন সহপাঠীরাও। দোষীদের উপযুক্ত শাস্তির দাবি করেছেন তাঁরা। তদন্তে নেমেছে শান্তিনেতন থানার পুলিশ।