কোনও প্রমাণ নেই। শুধু সন্দেহের বশেই এক যুবককে বেধড়ক মারধর করল জনতা। শেষ পর্যন্ত পুলিশ এসে আহত যুবককে উদ্ধার করে।

মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের বহরমপুর শহরে। অভিযোগ স্থানীয় হাতা কলোনি এলাকায় দু' টি মুদিখানা এবং ফলের দোকানে সম্প্রতি তালা ভেঙে চুরি হয়। সেই সন্দেহের বশে মঙ্গলবার গোপাল সাহা নামে এক যুবককে ধরে জেরা করতে শুরু করে স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি। অভিযোগ, তাঁকে কিছু বলার সুযোগ না দিয়েই বেধড়ক মারধর করতে শুরু করে স্থানীয়রা। পালানোর চেষ্টা করলে ওই যুবকের হাত পিছমোড়া করে বেঁধে তাঁকে মারধর চলতে থাকে। ইচ্ছেমতো পড়তে থাকে কিল, চড়, ঘুষি। যদিও তাঁকে সাহায্যে এগিয়ে আসেননি কেউ।

খবর পেয়েই তড়িঘড়ি বহরমপুর থানার পুলিশ আহত যুবককে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে । ঘটনা নিয়ে বহরমপুর থানার আইসি সনৎ দাস বলেন, 'আহত যুবককে উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ। তবে কেন ছেলেটিকে বেঁধে পেটানো হচ্ছিল ও কে কারা এর সঙ্গে যুক্ত, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।'

যদিও যে দোকানে চুরি হয়েছিল তার একটির মালিক জীবন সাহার দাবি, 'গোপাল ও তার দলবল মিলে এই চুরি করেছে বলেই আমাদের বিশ্বাস। ওকে জেরা করলেই আমাদের খোয়া যাওয়া টাকা-পয়সা উদ্ধার করা যাবে।'