কালীপুজোর উদ্বোধনে স্বমহিমায় বাবুল। গানের পাশাপাশি চলল রসিকতা। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে পাওয়া গেল একেবারে অন্য মেজাজে। বারাবনির নুনী সর্বজনীন কালী পুজোয় বাবুল বলেন, বৌদিদের বলছি- আপনারা লক্ষ্য রাখবেন পাড়ার  ছেলেরা যেন হিন্দি খেয়ে বাংলা বলে। উল্টোটা যেন না হয়। তবে রসিকতার পাশাপাশি কালী মন্দিরে দাঁড়িয়েই আগামী দিনে কর্পোরেশন দখলের অঙ্গীকার করলেন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ। গানে গানে চ্যালেঞ্জও করলেন। গান ধরেন, তুনে হামে দেখা নেহি,দেখা হে তো জানা নেহি, মুঝে পেহেচানা নেহি, ....দেখো টকরানা নহি, কিসি সে ভি হারে নেহি, হাম! বাবুলের দাবি দুইয়ে দুইয়ে পাঁচ তিনিই করতে পারেন।

শুক্রবার রাতে বারাবনির নুনী সার্বজনীন ২৫ ফুট কালী পুজোয় প্রদীপ জ্বালিয়ে উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ প্রতিমন্ত্রী। সেখানে আতসবাজিও ফাটান বিজেপি সাংসদ। এরপর চলে আসেন কুলটির চবকাতে। সেখানে শক্তিসংঘ কালী পুজোর উদ্বোধন করেন বাবুল। তবে পুজোর উদ্বোধনে এসে এলাকার শাসক দলের নেতাদের একহাত নেন তিনি।  বাবুলের অভিযোগ, এইসব এলাকাতে উন্নয়ন নেই, শৌচালয় নেই। আয়ুস্মান ভারতের স্বাস্থ্য পরিষেবা নিতে পারছেন না আপনারা। শক্তির দেবী কালী মায়ের মন্দিরে দাঁড়িয়ে আহ্বান জানাচ্ছি, আপনাদের শক্তিতে বলিয়ান হয়ে যেভাবে আমাকে দ্বিতীয়বার সাংসদ করেছেন, সেভাবে এবার বিজেপির নেতৃত্বে সুন্দর স্বচ্ছ কর্পোরেশন গড়ে তুলবেন। 

সম্প্রতি লাগাতার বৃষ্টিতে পণ্ড হতে বসেছিল কালী পুজো ও দীপাবলি। বৃষ্টি মাথায় নিয়ে শুক্রবার রাতে কালী পুজোর উদ্বোধনে গিয়ে বাবুল সুপ্রিয় গানটি গাওয়ার পর বলেন, এবার বৃষ্টি থেমে যাবে। মা কালীকে এসএমএসও করে দেব। আশ্চর্যজনক ভাবে হলেও বন্ধ হয়ে গেল বৃষ্টি। রাতের বৃষ্টি থেমে গিয়ে শনিবার সকাল থেকেই রোদের মুখ দেখলেন আসানসোলবাসী। দিল্লি থেকে চারদিন আগে এসেও কার্যত ঘরবন্দি থাকতে হয়েছে আসানসোলের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়কে। রানিগঞ্জে সংকল্প যাত্রায় অংশগ্রহণ করার পর মুষলধারে বৃষ্টির জন্য বাতিল করতে হয়েছে একের পর এক সংকল্প যাত্রা। এর মধ্যে অবশ্য ইণ্ডিয়ান আইডলের প্রতিযোগী অন্ধ শিল্পী অবিনাশ বাউরি দেখা করেছেন বাবুলের সঙ্গে। তাঁর মনোবল বাড়িয়ে আগামীর শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বাবুল। বড় মেয়ে শর্মিলী ও পার্টি কর্মীদের নিয়ে আসানসোলের সেন্ট্রাল মলের কার্নিভ্যাল হলে বসে গুমনামী দেখেছেন। শুক্রবার ধনতেরাস উপলক্ষ্যে স্টেশনে দুঃস্থদের নিজের হাতে খিচুরি পরিবেশন করে খাইয়েছেন। পরে বস্ত্র বিলি করে দীপাবলির শুভেচ্ছা জানান কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী।