গত শুক্রবার থেকে নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে রাজ্যজুড়ে শুরু হয়েছে প্রতিবাদ আন্দোলন। নদিয়ার নানা প্রান্তেও চলছে  বিক্ষোভ ও অবরোধ। নাকাশিপাড়ায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে টায়ার পুড়িয়ে বিক্ষোভ দেখান আন্দোলনকারীরা। শিমুরালিতেও অবরোধ করা হয় জাতীয় সড়ক। জেলাজুড়ে চলা এই বিক্ষোভ আন্দলনের আঁচ লেগেছে বৈষ্ণবতীর্থ নবদ্বীপ ও মায়াপুরেও।

 

মহাপ্রভু শ্রীচৈতন্যের জন্মস্থান নবদ্বীপ ও মায়াপুরে সবসময়ই লেগে থাকে পূর্ণ্যার্থী ও পর্যটকদের ভিড়। কিন্তু গত দুদিন হল তীর্থক্ষেত্রে চোখেই পড়ছে না পর্যটকদের ভিড়। অধিকাংশ রাস্তাই শুনশান মন্দির নগরীর।

নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে ট্রেন ও বাসে আগুন জ্বালিয়ে প্রতিবাদ জানাচ্ছে আন্দোলনকারীরা। আতঙ্কের জেরে মানুষ ভয় পাচ্ছেন বাড়ির বাইরে বেড়োতে। তারই প্রভাব পড়েছে  বৈষ্ণবদের দুই তীর্থক্ষেত্র নবদ্বীপ ও মায়াপুরে। 

 

দুই তীর্থক্ষেত্রেই চোখে পড়ছে না পর্যটকদের ভিড়। ফলে চরম ক্ষতির আশঙ্কায় নবদ্বীপ ও মায়াপুরের ব্যবসা-বাণিজ্য। বছরের বেশিরভাগ সময়ই এই দুই শহরে প্রতিদিনিউ বহু পর্যটকের ভিড় লেগে থাকে। কিন্তু বর্তমানে চিত্রটা একেবারে আলাদা। মন্দিরগুলিতে তীর্থযাত্রীদের ভিড় নেই।

নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে আন্দোলনের জেরে রাস্তাঘাট প্রায় শুনশান দুই শহরের। এই পরিস্থিতিতে চরম সমস্যা পড়েছেন মন্দির কর্তৃপক্ষ থেকে শুরু করে ব্যবসায়ী, এমনকি টোটো চালকরাও।