করোনা আতঙ্কের মাঝেই চড়ছে রাজনীতির পারদ। বিরোধীদের উপর হামলা, দুর্নীতি-সহ একাধিক ইস্যুতে একযোগে পথে নামল বিজেপি এ বামেরা। উত্তেজনা ছড়াল উত্তর ২৪ পরগণার বিধাননগর, পূর্ব মেদিনীপুরের ভগবানগোলা ও মুর্শিদাবাদের জলঙ্গিতে।

আরও পড়ুন: মেয়ের মান বাঁচাতে গিয়ে মৃত মা, তৃণমূল নেতার 'কীর্তি'তে উত্তাল বাগনান

বিধানগরের পুরসভার ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে মন্দির নির্মাণকে কেন্দ্র করে গণ্ডগোলের সূত্রপাত। স্থানীয় তৃণমূল কাউন্সিলর ও তাঁর অনুগামীরা এক বিজেপি কর্মীর উপর হামলা চালিয়েছেন বলে অভিযোগ। গেরুয়াশিবিরের দাবি, কাউন্সিলর বিকাশ নস্করের অনুগামীরা মন্দির তৈরির টাকা লুট করছেন। প্রতিবাদ করতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন দলের এক কর্মীরা। ঘটনার প্রতিবাদে কেষ্টপুরের সিদ্ধার্থনগর থেকে বিশাল মিছিল বের করেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। মিছিলে সামনের সারিতে ছিলেন দলের সম্পাদক সব্যসাচী দত্ত, কিশোর় দত্ত-সহ আরও অনেকে।

আরও পড়ুন: করোনা আক্রান্ত মদন মিত্র, বিস্ফোরক দাবি দিলীপ ঘোষের

বিজেপির অবস্থান বিক্ষোভকে কেন্দ্রে এদিন ব্যাপক উত্তেজনা ছড়াল পূর্ব মেদিনীপুরের ভগবানগোলায়। দিন কয়েক স্থানীয় শিমুলিয়া অঞ্চলের উপপ্রধানের বিরুদ্ধে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়ে যায়। এরপর থেকেই এলাকার বিজেপি কর্মীদের নানা ভাবে হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ। ঘটনার প্রতিবাদে ডেপুটেশন দেওয়াকে কেন্দ্র মঙ্গলবার সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন দু'দলের সমর্থকরা। বিজেপির দাবি, তাদের কর্মী-সমর্থকদের উপর রীতিমতো বাঁশ-লাঠি হামলা চালিয়েছেন শাসকদলের কর্মী-সমর্থকরা। কিন্তু পুলিশ কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। সংঘর্ষে আহত হন পাঁচজন।

মুর্শিদাবাদের সীমান্তবর্তী এলাকা জলঙ্গিতে আবার পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে আন্দোলন সংগঠিত করার চেষ্টা চালাচ্ছে বামেরা। মঙ্গলবার বিভিন্ন এলাকায় মিছিল ও বিডিও অফিসে ডেপুটেশন দেওয়ার কর্মসূচি ছিল তাদের। তাতেই রীতিমতো ধুন্ধুমারকাণ্ড ঘটে। পুলিশের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন বিক্ষোভকারীরা। চলে ধস্তাধস্তিও। পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে যে, পুলিশকে লাঠিচার্জ করতে হয়। এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে কমব্যাট ফোর্স।