আশিষ মণ্ডল, বীরভূম: খুন নাকি দুর্ঘটনা? জাতীয় সড়ক ধারে মিলল ক্ষতবিক্ষত দেহ। বিজেপি কর্মীর মৃত্যুতে এবার চাঞ্চল্য ছড়াল বীরভূমের মহম্মদবাজারে। দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে পুলিশ।  রিপোর্টের অপেক্ষায় তদন্তকারীরা।

আরও পড়ুন: ভরদুপুরে থানার অদূরে শুটআউট, টোটোচালককে লক্ষ করে গুলি চালাল দুষ্কৃতীরা

মৃতের নাম বলরাম ঘোষ। বাড়ি, মহম্মদবাজারের খয়রাকুড়ি গ্রামে। বরাবরই রাজনীতি করতেন তিনি। তবে দলবদল করেছেন বেশ কয়েকবার। স্থানীয় সূত্রে খবর, প্রথমে সিপিএমের সক্রিয় কর্মী ছিলেন বলরাম। এরপর যোগ দেন তৃণমূলে। তখন আবার তাঁর  বিরুদ্ধে একাধিক দুর্নীতির অভিযোগ। শেষপর্যন্ত রাজ্যের শাসকদলের বহিষ্কৃত হন এবং ফের যোগ দেন সিপিএমে। কিন্তু ঘটনা হল,  পুরানো দলেই বেশি থাকেননি বলরাম। কিছুদিন আগে বিজেপি পতাকা হাতে তুলে নেন ওই প্রৌঢ়। তবে ইদানিং আর ততটা সক্রিয়ভাবে রাজনীতি করতেন না তিনি।

আরও পড়ুন: ঐতিহাসিক পাশের হার উচ্চমাধ্যমিকে, কলকাতার জয়, এগিয়ে কোন কোন জেলা

তখন গভীর রাত। বৃহস্পতিবার মহম্মদবাজারের বেলগড়িয়া এলাকা জাতীয় সড়কে ধারে বলরাম ঘোষের রক্তাক্ত দেহ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দারা। খবর পেয়ে দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে পুলিশ। মৃতের পরিবারের দাবি, পরিকল্পনামাফিক তাঁকে খুন করা হয়েছে।  প্রাথমিকভাবে অবশ্য দুর্ঘটনার মৃত্যু বলেই মনে করছে পুলিশ। কী বলছেন স্থানীয় বিজেপি নেতারা? দলের কর্মীকে খুনের অভিযোগ তুলেছেন তাঁরা। গেরুয়াশিবিরে দাবি, মৃতের শরীরে একাধিক জায়গায় ধারালো অস্ত্রে কোপের চিহ্ন রয়েছে। তাহলে রাজনৈতি হিংসাতে এমন ঘটনা ঘটল? উত্তর খুঁজছেন তদন্তকারীরা।