খড়্গপুর সদর বিধানসভা উপনির্বাচনের জন্য হাতে সময় মাত্র দু-সপ্তাহ ৷ অল্প সময়ের মধ্যে নিজেদের ভোট চাওয়ার লড়াইয়ে কেউই থেমে থাকছেন না ৷ বিজেপির প্রেমচাঁদ ঝা থেকে তৃণমূলের প্রদীপ সরকার দুজনেই খড়্গপুরবাসীর বাড়ি বাড়ি গিয়ে পা ছুঁয়ে প্রণাম করে ভোট চাইছেন ৷ রাস্তা-বাজার সবস্থানেই এই ভোট চাইতে পা ছুচ্ছেন দুই প্রার্থী ৷ উল্টো চিত্র বাম-কংগ্রেস জোটের প্রার্থী চিত্ত মন্ডলের ৷

ষাটোর্ধ এই প্রার্থী একজন অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক ৷ দীর্ঘ তিরিশ বছরের বেশি শিক্ষকতার সুবাদে খড়্গপুর জুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে বহু ছাত্রছাত্রী ৷ যারা পরিবার নিয়ে এক একজন ভোটার ৷ চিত্ত বাবুকে ভোট চাইতে দেখেই অনেকেই পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম করছেন ৷ লোাকসভা নির্বাচনে বিজেপির উত্থানের পর খড়্গপুর বিধানসভা উপনির্বাচনের দিকে রাজ্যবাসীর নজর রয়েছে ৷ কারণ লোকসভার নিরিখে এই বিধানসভা কেন্দ্র থেকে জয়লাভ করেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। রাজ্যে বিজেপির উত্থানের সূত্রপাত তাঁর হাত ধরেই। সেই আসনের উপনির্বাচনে তৃণমূলকে পরাস্ত করে ২০২১-এর আগে বাংলায় ঘাসফুলের ধস নিশ্চিত করতে চাইবে বিজেপি। সেই সঙ্গে খড়্গপুর শহরে বিজেপির অভ্যন্তরীন কোন্দল যে প্রতিবন্ধকতা নয় তাও প্রমাণ করতে হবে দলকে ৷ 

অন্যদিকে, সেই স্থান ধরে রেখে নিজেদের ২০২১-এর বিধানসভা অভিযানকে মজবুত করতে হবে তৃণমূলকে ৷ কংগ্রেসের ক্ষেত্রেও লড়াই জোরদার শুরু হয়েছে ৷ কারণ দীর্ঘদিনের বিধায়ক প্রায়ত নেতা জ্ঞান সিং সোহন পালকে পরাস্ত করেই দিলীপ ঘোষ ক্ষমতায় এসেছিলেন ৷  সেই স্থানকে উদ্ধার করে কংগ্রেসেরই খড়্গপুর তা প্রমাণ করতে হবে ৷ এই প্রধান তিন দলের লড়াইয়ে মান বাঁচাতে ভোটারদের পা ছুঁয়ে আবেদন করছেন প্র্রার্থীরা ৷ কিন্তু এলাকায় যেতেই প্রবীণ শিক্ষক চিত্ত মন্ডলের পায়ে পড়ছেন এলাকার অনেকেই ৷ তাতে কাউকে মাথায় হাত দিয়ে আশীর্বাদ করছেন তো কারও কাছে হাত জোড় করে নমস্কার করে বেরিয়ে যাচ্ছেন কংগ্রেস প্রার্থী চিত্ত মন্ডল ৷