শুভজিৎ পুতুতণ্ড, বারাসাত: প্রেমিকা স্কুলছাত্রী, নাবালিকা। তার সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে বিপদে পড়লেন সদ্য কলেজে ভর্তি হওয়া প্রেমিক। পিসতুতো দাদা ও অন্য আত্মীয়দের হাতে বেধড়ক মার খেলেন ওই যুবক! আশঙ্কাজনক অবস্থায় তিনি ভর্তি নার্সিংহোমে। তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর চব্বিশ পরগণার গাইঘাটায়।

আরও পড়ুন: পরিবারের অজান্তেই রোগীকে 'পুড়িয়ে দিল' হাসপাতাল, খড়দহ হাসপাতালে নজিরবিহীন কাণ্ড

স্থানীয় সূত্রে খবর, আক্রান্ত যুবকের নাম প্রীতম দেবনাথ। বাড়ি, গাইঘাটার আমকোলা এলাকায়। মাটিকুমড়া এলাকার বাসিন্দা নবম শ্রেণির এক ছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল প্রীতমের। ওই যুবকের দাবি,  বৃহস্পতিবার রাতে দেখা করার জন্য ডেকে পাঠিয়েছিল প্রেমিকা। কিন্তু সেখানে গেলে তাঁকে বেধড়ক মারধর করেন ওই স্কুলছাত্রীর পিসতুতো দাদা ও অন্যন্য আত্মীয়রা। এরপর আশঙ্কাজনক অবস্থায় আক্রান্ত যুবককে প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় বনগাঁ মহকুমা হাসপাতালে। পরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় রোগীকে স্থানান্তরিত করা হয় কলকাতার একটি নার্সিংহোমে। এখন সেই নার্সিংহোমে চিকিৎসা চলেছে তাঁর। 

আরও পড়ুন: আজ জগদ্ধাত্রী পুজো, কোভিড বিধি মেনেই অষ্টমীতে জমজমাট বাংলা, দেখুন ছবি

এদিকে এই ঘটনার নবম শ্রেণির ছাত্রীর দাদাদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন প্রীতমের মা। সেই অভিযোগে ভিত্তিতে তিনজন অভিযুক্তকে গ্রেফতারও করেছে পুলিশ। যদিও প্রেমিকার পরিবারের লোকেদের পাল্টা দাবি, তাঁদের মেয়েরই এক বান্ধবীর সঙ্গেই নাকি প্রীতমের সম্পর্ক ছিল। সেই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসার জন্য ওই স্কুলছাত্রীকে নতুন করে প্রেমের প্রস্তাব দেন তিনি। সেই প্রস্তাব খারিজ করে দেওয়ার পরেও বৃহস্পতিবার রাতে প্রীতমই জোর করে কথা বলার জন্য় তাঁদের বাড়ির সামনে চলে আসে। আর মারধর? ছাত্রীটির পরিবারের দাবি, প্রীতমকে কেউ আঘাত করেননি। তেমন মানসিকতাই নেই তাঁদের।  সে যাই হোক, এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে কিন্তু চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।