আজবকাণ্ড ঘটে গেল আসানসোলে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক ব্য়ক্তির মৃত্য়ু হয়েছে। এমন ফোন পেয়ে তড়িঘড়ি দেহ উদ্ধারের জন্য ছুটলেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। বাড়ির সামনে অ্যাম্বুল্যান্স দাঁড় করিয়ে ঘরে ঢুকতেই যা দেখলেন, তা দেখে হতবাক হয়ে গেলেন তাঁরা। যা ঘটনা চোখের সামনে দেখলেন প্রথমে দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। পরে বিষয়টি বুঝতে পেরে ক্ষোভ প্রকাশ করলেন স্বাস্থ্যকর্মীরা।

আরও পড়ুন-বারুইপুরে বিজেপির দুই গোষ্ঠীর মধ্যে হাতাহাতি, জখম হয়ে হাসপাতালে ভর্তি কয়েকজন

স্বাস্থ্যকর্মীরা যখন বাড়িতে পৌঁছলেন, তখন দেখেন বাড়ির সোফায় বসে টিভি দেখছেন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত ব্যক্তি। মৃত সেই ব্যক্তি হলেন সৌমেন চট্টোপাধ্যায়। আসানসোল দক্ষিণের ধাদিকার বাসিন্দা। স্বাস্থ্যকর্মীরা জানতে পারেন তাঁর মা এই কাণ্ডটি ঘটিয়েছেন। সৌমেনবাবুর মা রেখা চট্টোপাধ্য়ায় মানসিক ভারসাম্যহীন। তিনি আসানসোলর উত্তর থানার পুলিশকে ফোন করে জানান তাঁর ছেলে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে। মায়ের ফোন পেয়ে তড়িঘড়ি ব্যবস্থা নেয় পুলিশ। আসানসোল স্বাস্থ্য দফতরকে জানিয়ে দ্রুত মৃতদেহ উদ্ধারের ব্যবস্থা করে। কিন্তু দেহ উদ্ধার করতে গিয়েই দেখা গেল এই কাণ্ড।

আরও পড়ুন-দায়িত্ব পেয়েই দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন মুকুল, 'রাহুল সিনহা বিজেপির মুখ', মন্তব্য মুকুলের

ঘটনার জেরে রীতিমত ক্ষুব্ধ আসানসোল স্বাস্থ্য দফতর। করোনায় স্বাস্থ্য পরিষেবা নিয়ে যখন এত অভিযোগ, তখন করোনায় আক্রান্ত রোগীর দেহ উদ্ধার করতে গিয়ে এই ধরনের ঘটনা নজিরবীহীন। জানাগেছে, সৌমেন চট্টোপাধ্য়ায় ঝাড়খণ্ডের পাকুরে বেসরকারি সংস্থায় কাজ করেন। দিন কয়েক অসুস্থ থাকায় বাড়ি ফিরেছেন তিনি। সৌমেনবাবু বলেন, তাঁর মা মানসিক ভারসাম্যহীন। তার জেরে এই কাণ্ড ঘটেছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখে জানিয়েছে পুলিশও।     

আরও পড়ুন-বীরভূম ফের পড়ল মাওবাদী পোস্টার, ছাত্রাবাস গ্রামে চাঞ্চল্য