কালী পুজোর উদ্বোধনে এবার অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত হয়েছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীর ঘোষ ৷ মেদিনীপুর শহরের ২ নং ওয়ার্ডের বিবেকানন্দপল্লীতে আয়োজিত এই পুজো মণ্ডপে অন্যান্য বার তৃণমূলের ছোঁয়া থাকলেও এবার সেখানে বিজেপির আধিপত্য ৷ শনিবার তাই এই পুজোর উদ্বোধনে প্রধান উদ্বোধক হিসেবে ছিলেন দিলীপ ঘোষ ৷ 
প্রস্তুতিও সারা ৷ এই পরিস্থিতিতে শুক্রবার রাতে এই পুজো কমিটির ৬ জনকে গ্রেফতার করল মেদিনীপুর শহরের কোতওয়ালি থানার পুলিশ ৷ 

পুলিশের দাবি, স্থানীয়রা অভিযোগ করেছিলেন , সেই মতো ধৃতদের জুয়ার বোর্ড থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে ৷  এই ঘটনায় রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু হয়েছে ৷ বিজেপির জেলা সম্পাদক অরুপ দাস বলেন, দিলীপ দাকে উদ্বোধক করার অপরাধে বিজেপি কর্মীদের ওপরে চাপ তৈরি করতে মিথ্যা মামলাতে গ্রেফতার করা হয়েছে ৷ ওই ব্যাক্তিরা পুজোর প্যান্ডেল বাঁধার কাজ করছিলেন ৷ এটা স্থানীয় তৃণমূলের কাউন্সিলর নির্মাল্য চক্রবর্তীর নির্দেশে করা হয়েছে ৷ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তৃণমূল কাউন্সিলর নির্মাল্য চক্রবর্তী ৷ তিনি বলেন, পুলিশ স্থানীয়দের কাছে অভিযোগ পেয়ে গ্রেফতার করেছে, এখানে আমাদের কোনও ভূমিকা নেই ৷ জুয়ার আসর থেকে গ্রেফতার হলেও তৃণমূলকে দোষ দিয়ে নিজেদের কালিমা ঢাকার চেষ্টা করছে বিজেপি ৷

রাজ্যের সাম্প্রতিক অতীত বলছে,বার বার পুলিশের বিরুদ্ধে শাসক দলের হয়ে কাজ করার অভিযোগ এনেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তাঁর অভিযোগ, রাজ্যে বিজেপি করার খেসারত দিতে হচ্ছে কর্মীদের। মিথ্য মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে তাঁদের। রাজ্যে মমতা বন্দ্যোপাধায়ের শাসনে গণতন্ত্র বলে কিছু নেই। পুলিশ দলদাসে পরিণত হয়েছে। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনের পর পুলিশেরও বোঝা উচিত, হাওয়া কোন দিকে বইছে।