'প্রতিদিন ওঁনার কথার উত্তর দেওয়ার সম্ভব নয়।  কারণ তাহলে আর রাজ্য চালানো যাবে না। '  রাজ্যপাল জগদীপ ধানকড়ের বিরুদ্ধে ফের তোপ দাগলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

কয়েক দিন আগে ফেসবুকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে খোলা চিঠি লিখেছিলেন রাজ্যের কংগ্রেসের নেতা ও প্রাক্তন কাউন্সিলার সন্ময় বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার রাতে তাঁকে সোদপুর থেকে গ্রেফতার করে পুরুলিয়া নিয়ে যায় পুলিশ। ঘটনায় শোরগোল পড়ে যায় রাজ্যে। ওই কংগ্রেস নেতার পরিবারের অভিযোগ, রাতে সোদপুর এক পরিচিতের বাড়ি থেকে সন্ময়বাবুকে গ্রেফতার করে পুরুলিয়া থানা নিয়ে চলে যায় পুলিশ। কিন্তু সরকারিভাবে তাঁদের গ্রেফতারির কথা জানানোই হয়নি। ফলে ওই কংগ্রেস নেতা কোথায় আছেন, তা নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়। শেষপর্যন্ত রবিবার সকালে সন্ময় বন্দ্যোপাধ্যায়কে পুরুলিয়া আদালতে পেশ করে পুলিশ। শর্তসাপেক্ষে জামিনও পেয়ে যান তিনি।  আর এই ঘটনা নিয়ে নাম না করে রাজ্য সরকারকে বিঁধেছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধানকড়।  রাজ্যপালের টুইট, 'মতপ্রকাশের যে অধিকার সংবিধান আমাদের দিয়েছে, তা একটি সোনালি উপহার এবং তার প্রতি যে কোনও রকম অসহিষ্ণুতাই গণতন্ত্রের পক্ষে মারাত্বক।  একটি প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থার মাধ্যমে যদি অসিষ্ণুতা প্রকাশ পায়, তাহলে তা শুধু উদ্বেগের নয়, দুঃখজনকও বটে।'

রবিবার সকালে এমএলএ কাপের উদ্বোধন করতে দক্ষিণ ২৪ পরগনার জীবনতলায় গিয়েছিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। স্থানীয় একটি কলেজের বাংলার ৬ জন মণীষীর মূর্তি উদ্বোচন করেন তিনি। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়, মন্ত্রী গিয়াসউদ্দিন মোল্লা-সহ আরও অনেকে। সাংবাদিকদের মুখোমুখি যথারীতি রাজ্যপালের টুইট নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়েন শিক্ষামন্ত্রী।