কখনও অর্ধাহারে, তো কখনও আবার অনাহারে দিন কাটাতেন তিনি। সম্পত্তির লোভে শেষপর্যন্ত দুই ছেলের হাতেই খুন হয়ে গেলেন এক বৃদ্ধ! গলার ফাঁস লাগিয়ে দেহ ঝুলিয়ে দেওয়া হল ঘরের সিলিং! চরম নৃশংসতার সাক্ষী থাকল বহরমপুর। ঘটনাটি জানাজানি হতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন স্থানীয় বাসিন্দারা। গণধোলাই দেওয়া হয় মৃতের দুই ছেলে ও তাদের স্ত্রীদের। 

আরও পড়ুন: সম্পত্তি নিয়ে বিবাদে ছেলের হাতে 'খুন' বৃদ্ধা, বাড়ি থেকে উদ্ধার দেহ

আরও পড়ুন: বাগনানে 'হলুদ বৃষ্টি'-র রহস্যভেদ, গবেষকের দাবিতে শোরগোল

মৃতের নাম বঙ্কিমচন্দ্র সিংহ। বাড়ি, বহরমপুর শহরের খাগড়া পাউন্ড রোডে। স্ত্রী আগেই প্রয়াত হয়েছেন। দুই ছেলে ও তাঁদের পরিবারের সঙ্গে থাকতেন অশতিপর ওই বৃদ্ধ। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, সম্পত্তি হাতিয়ে নেওয়ার জন্য বাবার উপর রীতিমতো অত্যাচার চালাতেন বঙ্কিমবাবুর দুই ছেলে। এমনকী, তাঁকে ঠিকমতো খেতে দেওয়া হত না। মঙ্গলবার সকালে ওই বৃদ্ধকে এলাকায় দেখতে না পেয়ে সন্দেহ হয় স্থানীয় বাসিন্দাদের। এদিকে বিপদ বুঝে ততক্ষণে কান্নাকাটি শুরু করে দিয়েছেন মৃতের দুই বউমা। কী ব্যাপার? স্থানীয় বাসিন্দারের দাবি, বাড়ির লোকের তাঁদের জানান, বঙ্কিমবাবু নাকি মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন। গলার দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন তিনি। ঘটনাটি জানাজানি হতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। 

 

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, দুই ছেলে ও বউমারা মিলেই বঙ্কিমচন্দ্র সিং-কে খুন করেছে এবং মৃতদেহ ঝুলিয়ে দিয়ে আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করছে। পুলিশ আসা পর্যন্ত আর অপেক্ষা করেননি, অভিযুক্তদের গণধোলাই দিতে শুরু করেন পাড়া-প্রতিবেশীরা। মৃতের ছোট ছেলেকে ও তার স্ত্রীকে আটক করেছে পুলিশ। বড়ছেলে ও তার স্ত্রী পলাতক।