প্রসূতির মৃত্যুর পর চিকিৎসককে মালা পরিয়ে অভিনব প্রতিবাদে সামিল হয়েছিলেন তাঁরা। এবার লাইন্সেস বাতিল করে অভিযুক্ত চিকিৎসককে গ্রেফতারের দাবিতে পথে নামলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। প্ল্যাকার্ড হাতে মিছিল বেরলো মুর্শিদাবাদের লালগোলায়। ঘটনার বিভাগীয় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রশান্ত বিশ্বাস।

ঘটনার সূত্রপাত রবিবার। ভোরবেলায় প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে মুর্শিদাবাদের লালগোলা মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি হন শতাব্দী দত্ত নামে এক গৃহবধূ। তখন তিনি যন্ত্রণায় ছটফট করছিলেন। রোগীর অবস্থা দেখে তড়িঘড়ি কল বুক করে দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক বাসব সাহাকে খবর পান কর্তব্যরত নার্স। কিন্তু ওই চিকিৎসক আসেননি বলে অভিযোগ। উল্টে ফোনে নার্সকেই প্রয়োজনীয় ওষুধ ও অক্সিজেন দেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি। তেমনই দাবি করেছেন শতাব্দীর পরিবারের লোকেরা।  চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে ওই গৃহবধূকে ওষুধ ও অক্সিজেন দেওয়াও হয় বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। প্রায় পাঁচ ঘণ্টার যন্ত্রণা ছটফট করার পর মারা যান শতাব্দী দত্ত। এরপরই উত্তেজনা ছড়িয়ে হাসপাতালে। 

দিনভর সুপারকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান মৃতার পরিবারের লোকেরা।  শেষপর্যন্ত সন্ধ্যায় যখন অভিযুক্ত চিকিৎসক বাসব সাহা আসেন, তখন তাঁর গলায় রজনীগন্ধার মালা পরিয়ে অভিনব কায়দায় প্রতিবাদ জানান বিক্ষোভকারীরা। রীতিমতো চাঁদা তুলে ওই চিকিৎসকের হাতে টাকাও তুলে দেওয়া হয়। পরে মুর্শিদাবাদ থানায় অভিযোগ দায়ের করেন মৃতার দাদা। সোমবার ফের স্মারকলিপি দেওয়া হল মুর্শিদাবাদ থানায়, বিক্ষোভ চলল লালগোলা মহকুমা হাসপাতালের সামনেও।  লাইসেন্স বাতিল করে চিকিৎসক বাসব সাহাকে গ্রেফতারের দাবি তুলেছেন শতাব্দী দত্তের পরিবারের লোকেরা।