আধুনিক যুগেও অবহেলিত কন্যা সন্তান। পরপর দুটি কন্যা সন্তান হওয়ায় স্ত্রীকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে কলকাতার শহরতলিতেই। শুধু তাই নয়, পুত্র সন্তান নেই কেন। এই দাবি তুলে স্ত্রীর গলা টিপে খুনের চেষ্টা করা হয় বলেও অভিযোগ।

আরও পড়ুন-১৮ ফুটের আঁকাশি বানিয়ে জেলের দেওয়াল টপকে চম্পট, হোঁশ উড়ল পুলিশের

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে কলকাতা শহর লাগোয়া নরেন্দ্রপুর থানা এলাকায়। জানাগেছে, চোদ্দ বছর আগে নরেন্দ্রপুর এলাকার বিবেকানন্দপুরের বাসিন্দা কার্তিক মণ্ডলের বিয়ে হয়েছিল প্রিয়াঙ্কার। বিয়ের দুই বছরের মাথায় একটি কন্যা সন্তান হয়েছিল তাঁদের। তারপর থেকেই স্ত্রী উপর স্বামী শারীরিক ও মানসিকভাবে অত্যাচার চালাত বলে অভিযোগ। দীর্ঘ ১২ বছর পর পুত্র সন্তানের আশায় আবারও কন্যা সন্তানের জন্ম দেন প্রিয়াঙ্কা। ছেলে না হওয়ায় পর থেকেই স্ত্রীর উপর অত্যাচারের মাত্রা বাড়তে থাকে। 

আরও পড়ুন-কাঁটাতার টপকে গরু পাচারের চেষ্টা, বাংলাদেশ সীমান্তে গুলি চালাল বিএসএফ

গত ৩০ নভেম্বর রাতে অত্যাচারের মাত্রা আরও বেড়ে যায়। স্ত্রীকে বেধড়র মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর করা হয়। শুধু তাই নয়, ইট দিয়ে তাঁর মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ স্ত্রীর। বিষয়টি তাঁর বাবা-মাকে জানালে মেয়েকে চিকিৎসার জন্য বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে আসেন পরিজনরা। স্বামী কার্তিক মণ্ডলের বিরুদ্ধে নরেন্দ্রপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।