খুব বেশি হয়তো সামর্থ্য নেই, কিন্তু মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সদিচ্ছা আছে। মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দুই মাসের বেতন দান করে দিলেন বীরভূমের এক অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী। সাড়ে তেরো হাজার টাকার চেক তুলে দিলেন জেলাশাসকের হাতে।

আরও পড়ুন: 'লতা-পাতা খেয়ে' ভরাতে হচ্ছে পেট, খাবারের দাবিতে পথ অবরোধ মথুরাপুরে

বাড়ি, বীরভূমের রামপুরহাটের শালবাদরা গ্রামে। অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে কাজের সুবাদে জেলা শহর সিউড়িতেই থাকেন বিনা মুর্মু।  স্বামী ও এক ছেলেকে নিয়ে সংসার। স্বামী ব্যবসা করেন। দু'জনের রোজগারে কোনওমতে সংসার চলে যায়। লকডাউনের বাজারে কত মানুষই তো আধপেটা খেয়ে দিন কাটাচ্ছেন! তিনিও না হয় দু'মাস একটু কষ্ট করবেন। বেতনের পুরো টাকাই করোনা ত্রাণে দান করে দিলেন বিনা। তিনি বলেন, “বহু মানুষ এক বেলা খেয়ে দিন কাটাচ্ছে। কারও দিন কাটছে অর্ধাহারে। সেই সমস্ত মানুষদের খাদ্যসংকট মেটানোর জন্য আমি চেকের মাধ্যমে টাকা দান করলাম মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে। আমার টাকায় যদি মানুষের উপকার হয়, তাহলে খুশি হব।'

আরও পড়ুন: ত্রাণ বিলিতেও 'রাজনৈতিক ভেদাভেদ', জনতা-পুলিশ সংঘর্ষে রণক্ষেত্র বাদুড়িয়া

আরও পড়ুন: আকাশ থেকে কেমন লাগছে শহরকে, লকডাউনের ছবি তুলে ধরল কলকাতা পুলিশ

স্ত্রীর এই মহৎ উদ্যোগে শরিক বিনার স্বামী কারিবুল হাসানও। এলাকায় সমাজসেবী হিসেবে পরিচিত তিনি। লকডাউন সময়ই শুধু নয়, বছরভরই দুঃস্থ, অসহায় কারিবুল নানাভাবে সাহায্য করেন বলে জানা গিয়েছে।