সিঙ্গুর, নন্দীগ্রাম কাণ্ডের পরে একসময়ে রাজ্যে পরিবর্তন আনতে পথে নেমেছিলেন বিশিষ্টজনরা। এবার পথে না নামলেও রাজনৈতিক হিংসা এবং তার জেরে প্রাণহানির প্রতিবাদে একজোট হচ্ছেন সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশিষ্টরা। আগামী ১৮ জুন রবীন্দ্র সদনে নাগরিক সভার ডাক দিলেন তাঁরা। 

লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকেই এ রাজ্যে রাজনৈতিক হিংসা চলছে। ভাটপাড়া, সন্দেশখালি-সহ বিভিন্ন জায়গায় হিংসার বলি হয়েছেন রাজনৈতিক দলের কর্মী- সমর্থকরা। শনিবারই মুর্শিদাবাদের ডোমকলে তিন তৃণমূল কর্মীকে খুন করা হয়েছে। প্রায় রোজই কোথাও না কোথাও রাজনৈতিক হিংসার ঘটনা ঘটছে। এর সঙ্গে গত কয়েকদিন ধরে রাজ্যের চিকিৎসা ক্ষেত্রে তৈরি হয়েছে অচলাবস্থা।  

এই সবকিছুর প্রতিবাদেই এবার একজোট হচ্ছেন বিশিষ্টজনরা। আগামী ১৮ জুন রবীন্দ্র সদনে সভা করবেন তিনি। কবি শঙ্ক ঘোষ ছাড়াও সেই বৈঠকে হাজির থাকবেন অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, অভিনেত্রী এবং পরিচালক অপর্ণ সেন, সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়, নবনীতা দেব সেন, পরিচালক গৌতম ঘোষ, চিত্র শিল্পী ওয়াসিম কাপূর-সহ অনেকেই। চিকিৎসকদের একটানা কর্মবিরতিতেও উদ্বিগ্ন বিশিষ্টজনরা। তাঁরা মনে করছেন, যথাযথ আলোচনা করলে জল একদূর গড়াতো না। সবমিলিয়ে বিশিষ্টজনরা এবার একজোট হওয়ায় রাজ্য প্রশাসন এবং শাসক দলের উপরে চাপ আরও বাড়ল। 

মুখ্যমন্ত্রী অবশ্য রাজনৈতিক হিংসার ঘটনায় বাংলায় কম বলেই দাবি করেছেন। তবে বিশিষ্টজনদের নাগরিক সভা নিয়ে তিনি কোনও মন্তব্য করবেন না বলে এ দিন নবান্ন থেকে জানিয়েছেন মমতা। তিনি বলেন, 'এটা বিশিষ্টজনদের বিষয়, ওঁরা যা ভাল মনে করবেন করবেন।' তবে বিশিষ্টজনরা চিকিৎসকদের কর্মবিরতি নিয়ে পুরো বিষয়টা জানেন না বলেও এ দিন দাবি করেন মুখ্যমন্ত্রী।