লকডাউনে দীর্ঘদিন আটকে পড়া আজমের শরিফ থেকে একটি স্পেশাল ট্রেন আজ সকালে ১১৯৮ জন পরিযায়ী শ্রমিক এবং তীর্থযাত্রীদের নিয়ে হুগলির ডানকুনি স্টেশনে আসে। ডানকুনিতে  রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে তাদের স্বাগত জানান রাজ্যের দুই মন্ত্রী মলয় ঘটক এবং তপন দাশগুপ্ত। 

মলয় ঘটক জানিয়েছেন, আমাদের  মানবিক মুখ্যমন্ত্রীর প্রচেষ্টায়় গতকাল বেলা ১১ টায় আজমের শরিফ থেকে এ রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিক ও তীর্থ যাত্রীদের নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল ওই ট্রেনটি। আজ দুপুরে ডানকুনি  স্টেশনে এলে প্রথমেই সেই ট্রেনের সমস্ত যাত্রীর স্টেশনে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়।  এখান থেকেই পরে  সরকারের স্পেশাল গাড়ি করে তাদের গন্তব্যস্থলে পাঠানো হয়। 

মলয় বাবু জানান, ইতিমধ্যে মুখ্যমন্ত্রী চেষ্টায় কয়েকদিন আগে রাজস্থানের কোটা থেকে প্রায় আড়াই থেকে তিন হাজার ছাত্র ছাত্রীকে ফেরানো হয়েছে। এবং আজকে এ রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে প্রথম ট্রেনটি এল।জেলা প্রশাসনের এবং স্বাস্থ্য দপ্তরের সমস্ত আধিকারিকরা উপস্থিত  থেকে তাদের স্বাস্থ পরীক্ষা করে ঘরে ফেরানো নিয়ে রূপ রেখা ঠিক করেন।

আজ চার নম্বর স্টেশন গাড়িটি আসার পর তাদের প্ল্যাটফর্মের উপর একটি অস্থায়ী স্বাস্থ্য কেন্দ্র করা হয়েছে সেখানে প্রত্যেকটি যাত্রীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয় এবং পুঙ্খানুপুঙ্খ পরীক্ষার পর তাদের নিজ নিজ জেলায় যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। এদিকে এইসব শ্রমিকদের নিয়ে বিভিন্ন জেলায় যাওয়ার জন্য রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে  বাসের বন্দোবস্ত করা হয়েছে। তার সঙ্গে সঙ্গে পথে তাদের খাবার এবং জলের যে প্রয়োজন তারও বন্দোবস্ত করা হয়।