আশিষ মণ্ডল, বীরভূম:  'দিদিকে বলো' ধাঁচে এবার চালু হল 'পুরসভাকে বলো'। সাধারণ মানুষের অভাব-অভিযোগ শোনার জন্য টোল ফ্রি নম্বর চালু করল বীরভূমের রামপুরহাট পুরসভা। নির্বাচনী চমক ছাড়া আর কিছুই নয়, পাল্টা কটাক্ষ করেছে বিরোধীরা। 

আরও পড়ুন: গ্রামজুড়ে শোকের আবহ, বন্ধুকে বাঁচাতে গিয়ে পরপর মৃত্যু ৫ খুদের

তখন করোনা কী জিনিস, তা জানত না কেউ। এ রাজ্যে লোকসভা ভোটে পর জনসংযোগ আরও নিবিড় করতে নয়া কৌশল নেয় তৃণমূল কংগ্রেস। নয়া কর্মসূচির নাম দেওয়া হয় 'দিদিকে বলো'। সাধারণ মানুষের যাতে নিজেদের অভাব-অভিযোগের কথা সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানাতে পারেন, তারজন্য টোল ফ্রি নম্বর চালু করা হয়।  নাম বদলে এবার সেই একই কায়দায় জনসংযোগ শুরু করল বীরভূমের রামপুরহাট পুরসভাও।

জানা গিয়েছে, দিন কয়েক আগে রামপুরহাটে যখন অনলাইনে পুরকর্ম দেওয়ার পরিষেবার উদ্ধোধন হয়, তখনই একটি টোল ফ্রি নম্বর চালু করার প্রস্তাব আসে। সেই প্রস্তাবকে বাস্তবে রূপ দিলেন রামপুরহাট পুরসভার প্রশাসক অশ্বিনী তিওয়ারি। সোমবার টোল ফ্রি নম্বরটি চালু করেন রামপুরহাটের বিধায়ক ও রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী আশিষ বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, 'রামপুরহাট পুর এলাকার বাসিন্দারা  আপাতত অফিস টাইমে পুরসভার টোল ফ্রি নম্বরে সমস্যার কথা জানাতে পারবেন। ৭২ ঘণ্টার মধ্যে অভিযোগ খতিয়ে দেখবেন পুর প্রশাসক। অভিযোগের কি সমাধান হল তাও জানিয়ে দেওয়া হবে।' রামপুরহাট পুরসভার প্রশাসক অশ্বিনী তিওয়ারি জানিয়েছেন, 'আপাতত শুধুমাত্র অফিস টাইমে টোল ফ্রি নম্বরটি চালু থাকবে। ফোন ধরার জন্য পাঁচজন কর্মী থাকবেন। তারা যাবতীয় অভিযোগ লিপিবদ্ধ করে আমার কাছে পাঠাবে। অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সমস্যা সমাধান করা হবে।'

আরও পড়ুন: ফল প্রকাশের আগে মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর অস্বাভাবিক মৃত্যু, বাড়িতে মিলল ঝুলন্ত দেহ

রামপুরহাট পুরসভার এই উদ্যোগকে নির্বাচনী চমক বলে কটাক্ষ করেছেন বিদায়ী সিপিএম কাউন্সিলর সঞ্জীব মল্লিক। তিনি বলেন, গত পাঁচ বছরে তৃণমূল পরিচালিত পুরসভা দুর্নীতিতে ডুবে গিয়েছে। যাঁর বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার অভিযোগ রয়েছে, তাঁর স্ত্রীকেই পুর প্রশাসক বোর্ডের সদস্য করা হয়েছে। আর ধৃতরাষ্ট্র এখন ড্যামেজ কন্ট্রোলে নেমেছে। মানুষ এর জবাব দেবেন।'