আশিষ মণ্ডল, বীরভূম:  মৃত, এমনকী জীবিত গ্রাহকেরও কার্ড আটকে রেখে রেশনের সামগ্রী আত্মসাৎ! বিক্ষোভের মুখে পড়ে শেষপর্যন্ত আত্মসাৎ করা সামগ্রী ফেরতের মুচলেকা দিতে হল ডিলারকে। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের ময়ুরেশ্বরে।  

আরও পড়ুন: আমফান ত্রাণে দুর্নীতিতে কড়া পদক্ষেপ, হাওড়ার তিনজন নেতাকে সাসপেন্ড করল তৃণমূল

বীরভূম ময়ুরেশ্বর ১ নম্বর ব্লকের দক্ষিণগ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত পাখুড়িয়া গ্রাম। গ্রামের রেশন ডিলার ভাসু কুমার মণ্ডলের বিরুদ্ধে  দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় বাসিন্দা তাপস বাগদি বলেন, 'রেশন ডিলার ৬০ জন মৃত ব্যক্তির রেশন সামগ্রী নিয়মিত তুলে আত্মসাৎ করছেন। প্রায় ২৫ জনের নামে দুটো কার্ড বানিয়ে একটি কার্ডের সামগ্রী আত্মসাৎ করছেন। অনলাইনে বিষয়টি জানতে পেরে বিডিও এবং খাদ্য দফতরের আধিকারিককে লিখিতভাবে জানাই।' কিন্ত কোনও লাভ হয়নি বলে অভিযোগ। শেষপর্যন্ত শুক্রবার সকালে ধৈর্য্যে বাধ ভাঙে গ্রামবাসীদের।

অভিযুক্ত ডিলারের বাড়ির সামনে জমায়েত করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন গ্রাহকরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় মল্লারপুর থানার পুলিশ। এলাকায় হাজির হন বিজেপি সাধারণ সম্পাদক অতনু চট্টোপাধ্যায়ও। দীর্ঘক্ষণ ধরে চলে বিক্ষোভ। পরিস্থিতির চাপে অভিযোগ স্বীকার করে নিয়ে কার্যত বাধ্য হন রেশন ডিলার ভাসু কুমার মণ্ডল। রীতিমতো মুচলেকা দিয়ে তিনি জানান, রেশনে যে সামগ্রী আত্মসাৎ করেছেন, তা গ্রাহকদের ফিরিয়ে দেবেন। মুচলেখায় স্বাক্ষর করেন খোদ ময়ুরেশ্বর ২ নম্বর ব্লকের খাদ্য সরবরাহ আধিকারিক। 

আরও পড়ুন: আমফানে ক্ষতিপূরণ প্রাপকদের তালিকায় 'গরমিল', প্রধানের বিরুদ্ধে এফআইআর বিডিও-র

এদিকে এই ঘটনায় শাসকদলের দিকেই অভিযোগেপ আঙুল তুলেছেন বিজেপি-র সাধারণ সম্পাদক অতনু চট্টোপাধ্যায়। তাঁর দাবি,  'এলাকার অধিকাংশ রেশন ডিলার অসৎ উপায়ে প্রকৃত প্রাপকদের রেশন সামগ্রী আত্মসাৎ করছেন। এর আগেও আমরা প্রশাসনকে দুর্নীতির ধরিয়ে দিয়েছি। কিন্তু দুর্নীতির সঙ্গে শাসক দল যুক্ত থাকায় প্রশাসন কোনও পদক্ষেপ করতে পারছে না।'