মালদায় গত ৪৮ ঘণ্টায় লাফিয়ে বাড়ল করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। শনিবার মালদায় আক্রান্তের সংখ্যা শতাধিক ছাড়াল। এর মধ্য়ে গত ২২মে সবচেয়ে বেশি একদিনে ৩২ জন কোভিড পজিটিভ রোগী পাওয়া গিয়েছে জেলায়। এর মধ্য়ে ইংরেজ বাজারের ২২ জন মিল্কি এলাকার পরিযায়ী শ্রমিক। 

২৩ তারিখের রিপোর্ট অনুযায়ী, আরও ১৩জন পরিযায়ী শ্রমিকের দেহে করোনা ভাইরাস পাওয়া গিয়েছে। এদের মধ্য়ে বেশিরভাগই কালিয়াচক ১ এর বাসিন্দা। এদের মালদা কোভিড হাসপাতাল পাশাপাশি কালিয়াচকের পলিটেকনিক কলেজ ও অস্থায়ী আইসোলেশন সেন্টারে রাখা হয়েছে। পাশাপাশি মানিকচকেও কিছু রোগীর থাকার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তবে যে হারে আক্রান্তের সংখ্য়া বাড়ছে, তাতে মালদা প্রশাসনের চিন্তা বেড়েছে।  

রাজ্য়ের করোনা নিয়ে বর্তমান চিত্র বলছে, পরিযায়ী শ্রমিকরা রাজ্য়ে ফেরার পরই সংখ্যাটা একলাফে অনেক বেড়ে গিয়েছে। আমফান পরবর্তী সময়ে এই সংখ্যাটা যে বাড়বে তা আগেই আঁচ করেছিল রাজ্য় সরকার। রাজ্য়ের একটা বড় অংশ জলমগ্ন ও ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়ায় নতুন করে বাংলায় পরিযায়ী শ্রমিক স্পেশ্য়াল ট্রেন চাইছে না নবান্ন। ইতিমধ্য়েই এই বিষয়ে রেলকে চিঠি দিয়েছেন রাজ্য়ের মুখ্য় সচিব। চিঠিতে বলা হয়েছে ২৬ তারিখের পর যেন শ্রমিক স্পশ্য়াল ট্রেন চালায় সরকার।

আপাতত রাজ্য় সরকারের এই আহ্বানে সাড়া দিয়েছে ভারতীয় রেল। আগামী ২৮ তারিখে ফের শ্রমিকদের ঘরে ফেরানোর ট্রেন চালাবে ভারতীয় রেল। এদিকে,রাজ্য়ে  শ্রমিকরা ফিরলেই তাদের পরীক্ষার পর কোয়ারান্টাইন বা আইসোলেশনে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন। তবে বহুক্ষেত্রে শ্রমিকরা গ্রামে গেলেই তাদের লোকালয়ে ঢুকতে দিচ্ছে না গ্রামবাসীরাই। ফলে বাধ্য় হয়ে গাছে অথবা জঙ্গলের কাছে তাবু খটিয়ে থাকতে হচ্ছে তাদের।