গত লোকসভা নির্বাচনে মতুয়া সম্প্রদায়ের ভোট ব্যাঙ্কে থাবা বসিয়েছিল বিজেপি। একুশের নির্বাচনের আগে মতুয়াদের সেই ভোট ব্যাঙ্ক ফিরে পেতে মরিয়া শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। এই অবস্থায় আজ বনগাঁ গোপালনগরে মতুয়াদের জন্য সরকারের কী কী পদক্ষেপ। তা তিনি জনসভা থেকে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী। একইসঙ্গে নয়া নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতা করে বিজেপিকে একহাত নিলেন তৃণমূল নেত্রী।

আরও পড়ুন-বনগাঁয় অভিনব উদ্যোগ, সেখানেই দেখা গেল দৃষ্টিহীনদের গণবিবাহ

বনগাঁর সভা থেকে তৃণমূল নেত্রী বলেন, ''মতুয়ারা সকলেই এদেশের নাগরিক। আপনাদের কোনও প্রমাণপত্রের প্রয়োজন নেই। জন্মগতভাবে বাড়িতে একজন থাকলেই জাতিগত শংসাপত্র। রাজ্যে এআরসি-এনপিআর হতে না। এ রাজ্যে এনআরসি হতে দেন না। রাজ্যকে গুজরাত বানাতে দেব না''। পাশপাশি, মতুয়া সম্প্রদায়ের জন্য রাজ্য সরকারের নেওয়া পদক্ষেপ গুলি স্মরণ করিয়ে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, বড়মার চিকিৎসা আমি নিজে করিয়েছি। মতুয়াদের যে এত গোঁসাই আসতেন। তা কেউ জানতেন না। এটা আমার পুরনো জায়গা''। 

আরও পড়ুন-'দুয়ারে সরকার' প্রকল্পে কাজে বেরিয়ে তৃণমূল-বুথ সভাপতির মৃত্যু, দেহ ঘিরে রহস্য বারুইপুরে

জনসভায় দাঁড়িয়ে তিনি আরও বলেন, ''আমরা বাউরি সম্প্রদায়ের জন্য কাজ করেছি। মতুয়া উন্নয়ন বোর্ড তৈরি করেছি। ইতিমধ্যেই ওই বোর্ডকে ১০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে। কমিটি আপনারা তৈরি করলে দ্রুত কাজ শুরু হয়ে যাবে''। এছাড়াও তিনি বলেন, ''হরিচাঁদ ঠাকুরের জন্মদিনেও ছুটি ঘোষণা করা হবে। হরিচাঁদ গুরুচাঁদ বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের পাঠ্য পুস্তকে হরিচাঁদ ঠাকুরের জীবনী অন্তর্ভুক্ত হবে''।