প্রেমের সম্পর্কে যৌনতা থাকবে, তাতে আর আশ্চর্যের কী আছে! কিন্তু প্রেমিকার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের জন্য যদি কেউ প্রতারণার আশ্রয় নেয়, তাহলে আইনে চোখে সেই ব্যক্তি কিন্তু অপরাধী।  উত্তর ২৪ পরগনার হাবড়ায় বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগে এক যুবককে গ্রেফতার করল পুলিশ।

প্রেমিকের বয়স ২০, আর প্রেমিকার ১৯।  স্কুলে পড়ার সময়ে এক সহপাঠীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয় শুভঙ্কর চক্রবর্তী নামে এক যুবকের। তার বাড়ি হাবড়ার দেশবন্ধু পার্ক এলাকায়।  প্রায় চার বছর ধরে ওই তরুণীর সঙ্গে চুটিয়ে প্রেম করেছে শুভঙ্কর। কিন্তু সেই সম্পর্কের পরিণতি কিন্তু সুখের হল না। শেষপর্যন্ত  শুভঙ্কর তার প্রেমিকার সঙ্গে প্রতারণা করল! অন্তত তেমনই অভিযোগ ওই তরুণীর। 

ঘটনাটি ঠিক কী? শুভঙ্কর চক্রবর্তীর প্রেমিকার দাবি,  শুভঙ্কর তাঁকে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন।  সেই প্রতিশ্রুতিতে বিশ্বাস করেই সহবাসে আপত্তি করেননি তিনিও।  একবার নয়, গত কয়েক বছরে বেশ কয়েকবার প্রেমিকার সঙ্গে শুভঙ্কর শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছে বলে অভিযোগ।  ওই যুবতীর দাবি, তিনি এখন ন'মাসে গর্ভবতী।  কিন্তু এখন আর বিয়ে করতে রাজি হচ্ছে না শুভঙ্কর।  যতই বার প্রেমিককে বিয়ে করার কথা বলেছেন, ততই এড়িয়ে গিয়েছে সে। পরিস্থিতি এমন জায়গায় পৌঁছেছে, যে এখন ওই যুবতীকে শুভঙ্কর রীতিমতো হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ।  ফলে বাধ্য হয়েই বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগে শুভঙ্কর চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে হাবড়ায় থানায় এফআইআর করেন তার প্রেমিকাই।   সোমবার রাতে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।  

বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের ঘটনা কিন্তু নয়। বরং ইদানিং এমনই ঘটনা হামেশাই ঘটছে।  প্রেমিকাকে বিশ্বাস করে শেষপর্যন্ত বিপাকে পড়ছেন মহিলারা।  দিন কয়েক আগে নদিয়ার শান্তিপুরে প্রেমের ফাঁদে ফেলে দূর সম্পর্কের এক আত্মীয়ার সঙ্গে সহবাসের অভিযোগ উঠেছিল এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। তাকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ।