মহাষষ্ঠীর সকালে বিষাদের সুর। হুগলি নদীতে স্নান করতে গিয়ে তলিয়ে গেল চারজন। তিনজনকে কোনওমতে উদ্ধার করা গিয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত খোঁজ নেই সাত বছরের এক বালকের। দুর্ঘটনা ঘটল দক্ষিণ ২৪ পরগণার পূজালি পুরসভার খেয়াঘাট এলাকায়।

আরও পড়ুন: 'ভুল চিকিৎসা'য় যুবকের মৃত্যু, নার্সিংহোমের সামনে দেহ রেখে বিক্ষোভ পরিবারের

ঘড়িতে তখন সকাল ন'টা। পুজালি খেয়াঘাটে কাছে হুগলি নদীতে স্নান করতে নেমেছিল চারজন বালক ও বালিকা। বয়স, সাত থেকে দশের মধ্যে। নদীতে ভাটা চলছিল, কিন্তু স্নান করতে করতেই আচমকাই স্রোতের টানে তলিয়ে যেতে থাকে চারজনই। চিৎকার শুনে ছুটে আসেন আশেপাশের লোকজন। তাঁরাই সুমাইয়া খাতুন ও সাজিদা খাতুন নামক দুই বালিকা ও সুমন পাল নামে এক বালককে উদ্ধার করেন। এদিকে ততক্ষণে স্রোতের টানে অনেকটা দূরে চলে গিয়েছে আবদুল সামাদ ওরফে রোহিত নামে সাত বছরের এক বালক। তাকে উদ্ধার করা যায়নি। সে এখনও নিখোঁজ।

আরও পড়ুন: ঝড়ের পূর্বাভাস, ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে মণ্ডপ, সতর্কতা জারি করল জেলা শাসক

কীভাবে দুর্ঘটনা ঘটল? পুজালি পুরসভার চেয়ারম্যান তাপস বিশ্বাস জানিয়েছেন, খেয়াঘাটে কাছে হুগলি নদীতে চোরাস্রোত রয়েছে। ভাটার সময়ে স্নান করতে নামলেও, কোনওভাবে হয়তো সেই স্রোতে মধ্যে পড়ে গিয়েছিল ওই চারজন। যে তিনজনকে উদ্ধার করা গিয়েছে, হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। নিখোঁজ বালকের সন্ধানে নদীতে নৌকা নামিয়ে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। খবর দেওয়া হয়েছে ডুবুরিদেরও।