প্রথমে খাবারের মধ্যে ওষুধ মিশিয়ে অচৈতন্য করা, তার পরে বালিশ চাপা দিয়ে খুন। এ পর্যন্ত স্ত্রী এবং প্রেমিকার ছক ঠিকঠাকই কাজ করেছিল। কিন্তু মৃতের দেহ চুপচাপ কবর দিতে গিয়েই ধরা পড়ে গেল দু' জনে। প্রেমিকের সঙ্গে চক্রান্ত করে স্বামীকে খুনের অভিযোগে স্ত্রীকে গ্রেফতার করল পুলিশ। ধরা পড়েছে অভিযুক্ত প্রেমিকও। 

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনা ঘটেছে বাগুআটি থানা এলাকা আটঘরায়। জানা গিয়েছে আটঘরার বাসিন্দা মোজাফফর হোসেন তাঁর স্ত্রীর সঙ্গে এক ব্যক্তির অবৈধ সম্পর্কের কথা জেনে ফেলেছিলেন। এর পরেই ছক কষে মোজাফফরকে খুন করে ওই দু' জন। মৃত মোজাফফরের একটি পুত্রসন্তানও রয়েছে। 

রবিবার প্রথমে খাবারের সঙ্গে ওষুধ খাইয়ে স্বামীকে অচৈতন্য করে দেয় স্ত্রী আর্জিনা বিবি। এর পরে প্রেমিকের সঙ্গে মিলে বালিশ চাপা দিয়ে স্বামীকে খুন করে সে। মৃত্যু নিশ্চিত করতে মোজাফফরের মাথা এবং গোপনাঙ্গে ভারী কিছু দিয়ে আঘাতও করা হয়। 

এ পর্যন্ত সবকিছু পরিকল্পনা মতো হলেও দেহ লোপাট করতে গিয়েই বিপাকে পড়ে প্রেমিক- প্রেমিকা। এয়ারপোর্ট থানার অন্তর্গত সালুয়া এলাকায় মোজাফফরের দেহ কবর দিতে নিয়ে যায় ওই দু' জন। বেআইনি ভাবে দেহ কবর দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে বলে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আর্জিনা এবং তার প্রেমিক মহম্মদ ইলিয়াসকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিশ। তার পরেই ধীরে ধীরে গোটা ঘটনা সামনে আসে। পরে বাগুইআটি থানার পুলিশ এসে অভিযুক্ত দু' জনকে গ্রেফতার করে। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।