স্ত্রী বা প্রেমিকার মন পেতে এখন ধর্নার জুড়ি মেলা ভার। এবার সদ্য বিবাহিতা স্ত্রীকে শ্বশুরবাড়ি থেকে ফেরাতে মুর্শিদাবাদে ধর্নায় বসলেন এক যুবক। তাঁর দাবি, যতক্ষণ না স্ত্রীকে ফিরে পাচ্ছেন, ততক্ষণ ধর্না চালিয়ে যাবেন তিনি। ঘটনাকে ঘিরে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মুর্শিদাবাদের বহরমপুরের কাশিমবাজারে। 

ধর্নায় বসা এই যুবকের নাম দেবাশিস রায়। বহরমপুরের কাশিমবাজারের কলমবাগানে নিজের শ্বশুরবাড়ির সামনে এ দিন সকাল থেকে ধর্নায় বসেন ওই যুবক। জানা গিয়েছে, বেশ কয়েক বছরের সম্পর্কের পর মাস ছয়েক আগে কলাবাগান এলাকার বাসিন্দা যুবতীর সঙ্গে বিয়ে হয় দেবাশিসের। মালদহের বাসিন্দা পেশায় ঠিকা কর্মী দেবাশিসের সঙ্গে মেয়ের বিয়ে মেনে নেয়নি যুবতীর পরিবার। যদিও, বিয়ের পরে স্ত্রীর সঙ্গে এসে ছ' দিন শ্বশুরবাড়িতে কাটিয়েও যান দেবাশিস। এর পরে ভাদ্র মাস কাটানোর নাম করে মেয়েকে নিজের কাছে নিয়ে এসে রাখেন দেবাশিসের শ্বশুরমশাই। তাঁর অভিযোগ, এর পর আর স্ত্রীকে আর তাঁর কাছে যেতে দেওয়া হয়নি।

আরও পড়ুন- ছেলের জন্মদিন, দেখা করতে এসে বাবার হাতে খুন মা

আরও পড়ুন- এক বিয়েতে মন ভরেনি, ফের বিয়েতে সুদীপ-প্রীতমা

স্ত্রীকে বাড়ি ফিরিয়ে নিতে এর পরেই সোমবার সকাল থেকে ধর্নায় বসার সিদ্ধান্ত নেন দেবাশিস। শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্নায় বসে তিনি বলেন, 'হয় স্ত্রীকে শ্বশুরবাড়ি থেকে উদ্ধার করে আমার সঙ্গে নিয়ে যাব না হলে এখানেই এভাবে ধর্না চালিয়ে আত্মহত্যা করব।'

দেবাশিসের দাবি অবশ্য মানতে চাননি তাঁর স্ত্রী। তিনি পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, 'আমার স্বামী আমার উপরে শারীরিক অত্যাচার চালাতো। সেই কারণেই আমি ওঁর সঙ্গে থাকতে চাই না।' ধর্নার খবর পেয়ে এ দিন খোঁজখবর নিতে আসে পুলিশও। 

ধর্নায় বসা স্বামী অবশ্য কোনও কথাই শুনতে রাজি নন। হাতে স্ত্রীর সঙ্গে বিয়ের ছবি নিয়ে ধর্না চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি।