সন্দেহ থেকে ছাড় পেল না কাছের আত্মীয়। স্ত্রীর সঙ্গে ভায়রার অবৈধ সম্পর্কের অভিযোগে ভায়রাকে বঁটি দিয়ে এলোপাথারি কোপ মারল স্বামী।। গুরুতর আহত‌‌‌ অবস্থায় আক্রান্তকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে অভিযুক্তকে। উদ্ধার করা হয়েছে রক্ত মাখা ধারালো বঁটি। 

পুলিশ জানিয়েছে, বুধবার রাত সাড়ে আটটা নাগাদ হঠাৎ উত্তম দাস ধারালো বঁটি নিয়ে ভায়রা অশোক দাসের ওপর চড়াও হয়। চলে এলোপাতাড়ি বঁটির কোপ। যন্ত্রণায় চিৎকার করতে থাকেন আক্রান্ত। চিৎকার শুনে ছুটে আসেন প্রতিবেশীরা।
 
পরে তাঁকে প্রতিবেশীরাই তড়িঘড়ি হাবড়া হাসপাতালে নিয়ে যান। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাঁকে আরজিকর হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। ইতিমধ্যেই গলায় তেত্রিশটি সেলাই পড়েছে আক্রান্তের। পরিবারের মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে হাবড়া থানার পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থলে পৌঁছয়। পরে উত্তেজিত জনতার হাত থেকে আহত উত্তম দাসকে উদ্ধার করে হাবড়া হাসপাতালে নিয়ে আসে পুলিশ। উদ্ধার করা হয় রক্তাক্ত ধারালো বঁটি। বুধবার রাতেই অভিযুক্ত উত্তম দাসকে গ্রেফতার করে হাবড়া থানার পুলিশ। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে হাবরা থানা।