নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনি নিয়ে শুক্রবার থেকেই উত্তাল রাজ্য। বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভকারীদের আন্দোলনের জেরে নাজেহাল স্বাভাবিক রেল পরিষেবা। শুক্রবার দুপুর থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন ট্রেন বাতিল হতে থাকে। কোথাও আবার ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে থাকে ট্রেন। রাতের দিকে ক্ষণিকের জন্য স্বাভাবিক হয়েছিল রেল পরিষেবা। 

আরও পড়ুনঃ প্রতিবাদের নামে পর পর বাসে আগুন, অগ্নিগর্ভ কোনা এক্সপ্রেসওয়ে, দেখুন ভিডিও

শনিবার সকাল হতে না হতেই আবারও একই চিত্র ধরা পড়ে হাওড়া স্টেশন চত্বরে। ১০টার পর থেকেই একের পর এক বাতিল হতে থাকে ট্রেন। ক্রমেই বাড়তে থাকে প্রতিক্ষারত যাত্রীর সংখ্যা। এরপরই একাধিক ট্রেন বাতিলের খবর ঘোষণা করা হয়। এদিন বাতিল করা হয়, চেন্নাইগামী করোমণ্ডল এক্সপ্রেস, হাওড়া-পুণে দুরন্ত এক্সপ্রেস, হাওড়া-দিঘা কান্ডারি, হাওড়া-পুরী শতাব্দী, খড়গপুর পর্যন্ত যাবে ট্রেন, হাওড়া-তিরুপতি হামসফর এক্সপ্রেস, হাওড়া-পুণে দূরন্ত এক্সপ্রেস ও হাওড়া-মুম্বই গীতাঞ্জলী এক্সপ্রেস। 

আরও পড়ুনঃ 'গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে আন্দোলন করুন', রাজ্যবাসীকে বার্তা মুখ্য়মন্ত্রীর

শনিবার সকাল থেকেই জেলায় জেলায় ট্রেন চলাচল ব্যহত হওয়ায় বিপাকে পড়তে হয় নিত্য যাত্রীদের। যদিও বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশে ইতিমধ্যেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শান্তি বজায় রাখার আর্জি জানিয়েছেন। আন্দোল করা হক গণতান্ত্রিক উপায়। রাজ্যের বিভিন্ন স্তরের মানুষেরও মুখে একই বার্তা। কিন্তু কোথাও গিয়ে যেন ক্রমেই অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠছে বেশ কিছু জেলা। যার জেরে বর্তমানে থমকে যোগাযোগ ব্যবস্থা।