তৃণমূল সাংসদ অভিনেত্রী নুসরত জাহানের পাশে দাঁড়ালেন বিজেপি সাংসদ এবং কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী। লোকসভায় সাংসদ হিসেবে শপথ নেওয়ার সময় শাখা, সিঁদুর পরে এবং 'ঈশ্বরের নামে' শপথ নিয়ে কয়েকজন মুসলিম ধর্মগুরু এবং কট্টরপন্থীদের একাংশের ফতোয়ার মুখে পড়েন বসিরহাটের তৃণমূল সাংসদ। এমন কী, নিজের নামের শেষে কেন তিনি তাঁর হিন্দু স্বামীর পদবী ব্যবহার করলেন, তা নিয়েও নিশানা করা হয় নুসরতকে। এবার তারই প্রতিবাদ করলেন রায়গঞ্জের সাংসদ দেবশ্রী চৌধুরী। 

এ বার রায়গঞ্জ থেকে ভোটে জিতে কেন্দ্রীয় নারী এবং শিশুকল্যাণ প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন দেবশ্রীদেবী। নুসরতের শপথ নিয়ে ফতোয়া জারি করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, 'এটা পাকিস্তান নয়, এটা ভারতবর্ষ। এখানে ফতোয়া দিয়ে কোনও লাভ নেই।'

আরও পড়ুন- স্ত্রী সাংসদ! নুসরতকে নিয়ে গর্ব করে কী বললেন স্বামী নিখিল জৈন

সাংসদ হিসেবে শপথ নেওয়ার সময় নিজেকে নুসরত জাহান রুহি জৈন বলে পরিচয় দেন বসিরহাটের সাংসদ। সম্প্রতি নিখিল জৈন নামে এক শাড়ি ব্যবসায়ীকে বিয়ে করেছেন নুসরত। বিয়ের পর থেকেই নিজের স্বামীর পদবী নামের শেষে ব্যবহার করছেন তিনি। আর তার জেরেই কয়েকজন কট্টরপন্থীদের রোষের মুখে পড়তে হয় নুসরতকে। তাঁর বিরুদ্ধে ফতোয়াও জারি করা হয়। সোশ্যাল মিডিয়াতেও বেশ কিছু তির্যক মন্তব্য করা হয় অভিনেত্রী- সাংসদকে নিয়ে।  

এই প্রসঙ্গেই বিজেপি  সাংসদ দেবশ্রী এ দিন রায়গঞ্জে বলেন, 'ধর্মাচারণ সবার সাংবিধানিক অধিকার। ওনার যেটা মনে হয়েছে, সেটা বলেছেন। এ বিষয়ে আমার কিছু বলার নেই। কিন্তু যাঁরা নুসরতকে ফতোয়া দিচ্ছেন, তাঁদের বুঝতে হবে ফতোয়া বন্ধ করার সময় এসেছে। যিনি সংসদে দাঁড়িয়ে সংবিধান মেনে শপথ নিচ্ছেন, তাঁকে ফতোয়া দেওয়ার জন্য যা ব্যবস্থা নেওয়ার, উপযুক্ত জায়গা থেকে নিশ্চয়ই নেওয়া হবে।' এর আগে একই ভাবে নুসরতের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন সাধ্বী প্রজ্ঞা।