রাজনীতিতে সৌহার্দ্যের বাতাবরণ উধাও। একে অপরের বিরুদ্ধে কাদা ছোঁড়াছুঁড়িতেই ব্যস্ত থাকেন প্রতিপক্ষ দলের নেতারা। উল্টো পথে হেঁটে বিপাকে পড়লেন পূর্ব মেদিনীপুরের এগরা বিধায়ক সমরেশ দাস।  তাঁকে শোকজ করল দলের জেলা নেতৃত্ব। অপসারিত হলেন তৃণমূলের এগরা এক নম্বর ব্লকের সভাপতি, তিরস্কার করা হল এগরা পুরসভার চেয়ারম্যান শঙ্কর বেরা ও কাউন্সিলর হরিপদ বেরাকেও।

আরও পড়ুন: একই মঞ্চে বিজেপি সাংসদ ও তৃণমূল বিধায়ক, মেলা উদ্বোধন নিয়ে পরে গেল রাজনৈতিক শোরগোল

ঘটনার সূত্রপাত শুক্রবার। সেদিন এতিহ্যশালী এগরা মেলার উদ্বোধনে মঞ্চে  খোদ বিজেপি-এর রাজ্য সভাপতি ও সাংসদ দিলীপ ঘোষের সঙ্গে একমঞ্চে হাজির ছিলেন এগরার তৃণমূল বিধায়ক সমরেশ দাস! শুধু তাই নয়, মঞ্চে দু'জনকে রীতিমতো খোশমেজাজে গল্প করতে দেখা যায়। অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন তৃণমূল পরিচালিত এগরা পুরসভার চেয়ারম্যান, কাউন্সিলর ও দলের ব্লক স্তরে নেতারাও।  ঘটনাটি নজরে আসতেই কড়া পদক্ষেপ করল তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য নেতৃত্ব। রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি এগরার বিধায়ক-সহ মঞ্চে থাকা দলের পদাধিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিলেন রাজ্য সভাপতি শিশির অধিকারীকে। কাঁথির সাংসদ জানিয়েছেন, 'অনুষ্ঠানের ছবি ও বিধায়ক-সহ দলের পদাধিকারীদের রেকর্ড করা বিবৃতি আমাদের হাতে এসেছে। রাজ্য সভাপতি নির্দেশেই তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।'

আরও পড়ুন: তৃণমূল বিধায়ক খুনের মামলার বিপাকে মুকুল রায়, সিআইডি তদন্তের নির্দেশ আদালত

কিন্তু, দিলীপ ঘোষের সঙ্গে একই মঞ্চে হাজির থাকলে ফল কী হতে পারে, তা কি জানতেন না এগরার তৃণমূল বিধায়ক সমরেশ দাস? বিধায়কের বক্তব্য,'মেলা উদ্বোধনী অনুষ্ঠান রাজনীতির জায়গায় নয়।  দিলীপ ঘোষ এলাকার সাংসদ। অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তিনি। বিধানসভাতেও আমার একসঙ্গে কাজ করেছি।' উল্লেখ্য, একসময় খড়গপুরের বিধায়ক ছিলেন বিজেপি-এর রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। গত লোকসভা ভোটে পশ্চিম মেদিনীপুর থেকে সাংসদ  নির্বাচিত হন তিনি।