পাহাড় ছিল তার নেশা। সেই নেশার টানে  বার বার ছুটে যেতেন  পাহাড়ের কোলে।  এবারও সেই ভালবাসার টানে  চন্দ্রভাগায় ট্রেকিংয়ে গিয়েছিলেন  নদিয়ার চাপড়ার যুবক সাহেব সাহা।  কিন্তু এবার আর ফেরা হল না বাড়ি। পাহাড়ের কোলই চিরদিনের জন্য ঘুমিয়ে পড়লেন বছর সাঁইত্রিশের যুবক।

কৃষ্ণনগর নেচার অ্যান্ড অ্যাডভেঞ্চার লাভার্স অ্যাসোসিয়েশনের  সদস্য ছিলেন চাপড়ার যুবক সাহেব।  এই সংগঠনের সঙ্গেই ১০ সেপ্টেম্বর হিমাচল প্রদেশের চন্দ্রভাগা-১৩ পর্বত ট্রেকিংয়ের উদ্দেশ্যে রওনা দেন তিনি। গত শুক্রবার চন্দ্রভাগার চূড়াতেও ওঠেন সাহেব। এর পর অভিভাবকদের মত সকল যাত্রীদের নিরাপদে নিচে নামতে সাহায্যও করেন। কিন্তু এর পরেই ঘটে বিপিত্ত। সহযাত্রীদের নিচে নামিয়ে দেওয়ার পর অক্সিজেনের অভাবে শ্বসকষ্ট শুরু হয় তার।  দেখা দেয় বুকে ব্যাথা। শেষপর্যন্ত নিজের প্রিয় পাহাড়ের বুকেই চিরঘুমে চলে যান নদিয়ার সাহেব সাহা। 

সাহেবের মৃত্যুর খবর আসচেই চাপড়ের নেমে এসেছ শোকের ছায়া। শোকে পাথর হয়ে গিয়েছেন স্ত্রী লক্ষ্মী ও একমাত্র  পুত্র আদি। সোমবার দেহ বাড়িতে আসেতই কান্নায় ভেঙে পড়েন পরিজনরায সাহেবের শেষ যাত্রায় পা মেলান আবাল, বৃদ্ধ, বনিতা। সাহেবকে শেষশ্রদ্ধা জানাতে উপস্থিত ছিলেন বিধায়ক রুকবানুর রহমনাও।