একুশের জুলাইয়ের ভিড় দেখে হতাশ হয়ে পড়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই ভাষাতেই গত রবিবার ধর্মতলায় তৃণমূলের শহিদ সমাবেশকে কটাক্ষ করলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়। 

একুশে জুলাইয়ের সমাবেশের পরেই বিধাননগরের দত্তাবাদে বিজেপি কর্মীদের উপরে হামলার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এই প্রসঙ্গে এ দিন কলকাতা বিমানবন্দরে মুকুল রায় বলেন, 'একুশে জুলাইয়ের সভায় জনসমাগম দেখে হতাশ হয়ে পড়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই কারণেই মামলা করে নয় পুলিশ দিয়ে ভয় দেখিয়ে ক্ষমতা ধরে রাখতে চাইছেন। কিন্তু তৃণমূল যাই করুক না কেন, বাংলায় তাঁদের দিন সীমিত। আগামী দিনে আঞ্চলিক দলের মর্যাদা হারিয়েছে।'

আরও পড়ুন- কেমন ভিড় হল একুশের সমাবেশে, দেখে নিন ধর্মতলার ছবি, রইল ভিডিও

আরও পড়ুন- তৃণমূল ছিল, আছে, থাকবে, কর্মী সমর্থকদের বোঝাতে মরিয়া মমতা

রবিবারের সভায় তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করেছিলেন, সর্বভারতীয় মর্যাদা থাকল কি না থাকল, তাতে তৃণমূলের কিছু যায় আসে না। এ দিনও অবশ্য মুকুল রায় তৃণমূলকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, 'সর্বভারতীয় তকমা আগেই চলে গিয়েছে, এবার আঞ্চলিক দলের মর্যাদাও হারাবে তৃণমূল।'

এ দিনও অবশ্য সব্যসাচী দত্তের বিজেপি-তে যোগদানের বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছেন মুকুল রায়। তাঁর দাবি, বিষয়টি নিয়ে এখনও দলে কোনও কথা হয়নি। 

অন্যদিকে প্রাথমিক শিক্ষকদের আন্দোলন নিয়েও এ দিন মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করেছেন বিজেপি নেতা। মুকুল রায় বলেন, 'সরকারের উচিত ছিল আন্দোলনকারীদের ডেকে কথা বলে সম্মানজনক মীমাংসা করা। কিন্তু আন্দোলনকারীদের জন্য শৌচাগার, জলের ব্যবস্থাটুকুও করা হয়নি। ২০০৯ সালে পার্শ্বশিক্ষকদের আন্দোলন সমর্থন করে মুখ্যমন্ত্রী যা বলেছিলেন, তার সঙ্গে এখনকার বক্তব্যের মিল খুঁজে পাবেন না। এর থেকেই বোঝা যায়, গণতান্ত্রিক আন্দোলনেও আস্থা হারিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।