ধর্মের নামে হিংসার ঘটনা আকছার ঘটছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। কোথাও আবার ধর্মকে অস্ত্র করেই রাজনীতির খেলা শুরু করে দিচ্ছেন  নেতানেত্রীরা।  জন্মাষ্টমীর সকালে অবশ্য সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমী ছবি দেখা গেল মালদহে। শুধু ধর্মীয় ভেদাভেদ নয়, জন্মাষ্টমীর মিছিল দূর হয়ে গেল রাজনৈতিক দূরত্বও। 

এ দিন সকালে জন্মাষ্টমী উপলক্ষে শোভাযাত্রা বের হয় মালদহ শহরে। চড়া রোদের মধ্যে সেই শোভাযাত্রাতে যাঁরা পা মেলালেন, সেই হিন্দুদের হাতে জলের বোতল এবং চকোলেট তুলে দিলেন মুসলিমরা। রাজনৈতিক ভেদাভেদ দূরে সরিয়ে বিজেপি সাংসদ খগেন মুর্মুর সঙ্গে শোভাযাত্রায় হাঁটলেন কংগ্রেস বিধায়ক এবং তৃণমূল নেতারা। 

আরও পড়ুন- বাংলাতেই রয়েছে রাবড়ি গ্রাম, জন্মাষ্টমীতে দম ফেলার সময় নেই বাসিন্দাদের

আরও পড়ুন- মাত্রাতিরিক্ত ভিড়ে লোকনাথধামে পদপিষ্ট হয়ে মৃত একাধিক, আহত বহু

পুরনো মালদহের বাচামারি পালপাড়া এলাকা থেকে শহর পরিক্রমা করে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক এলাকার চৌরঙ্গী মোড় এলাকায পর্যন্ত মিছিল আসে। মিছিলে পা মেলান বহু মানুষ। মঙ্গলবাড়ি দরগা মোড়ে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ জল চকলেট-সহ মিষ্টিমুখ করান এই মিছিলে থাকা ভক্তদের। পুরনো মালদহ পুরসভার কুড়ি নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সফিকুল ইসলাম বলেন, 'এ দেশে হিন্দু-মুসলিম পাশাপাশি বসবাস করেন। আমরা সেটাই চাই।'
 

বিজেপি সাংসদ খগেন মুর্মু বলেন, 'ভগবান শ্রীকৃষ্ণ ছিলেন সম্প্রীতির প্রতীক। তিনি চেয়েছিলেন সর্বস্তরের মানুষ একসঙ্গে বসবাস করুক।'
 কংগ্রেস বিধায়ক অর্জুন হালদার বলেন, 'সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এই মিছিলে আমরাও পা মিলিয়েছি।' বিজেপি সাংসদ এবং কংগ্রেস বিধায়কের সঙ্গে একমত হন তৃণমূল নেতারাও।