সম্প্রতি পাহাড়ে জিটিএ মেয়াদ শেষ হয়েছে। দুই দশক ধরে পঞ্চায়েত নির্বাচন হয়নি। গণতন্ত্রের অধিকারী প্রকাশ করতে পারেননি পাহাড়ের মানুষ। এই বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। তিনি বলেন, ''পাহাড়ের স্থায়ী সমাধান প্রয়োজন। এই সমস্যার সামাধান রাজ্য়ের কাছে খুঁজলে হবে না। এই সমাধান করতে পারে কেন্দ্রীয় সরকার''। বিস্ফোরক মন্তব্য রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের।

আরও পড়ুন-পুড়ে ছাই পরপর ৬টি বাড়ি ও ৩টি দোকান, ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে দিশেহারা অবস্থা পরিবারের

একুশের বিধানসভা ভোট এগিয়ে আসতেই বদলেছে পাহাড়ের রাজনীতির সমীকরণ। সম্প্রতি, দীর্ঘদিন অন্তরালে থাকা বিমল গুরং প্রকাশ্যে এসে তৃণমূলকে সমর্থনের কথা জানান। অথচ, তাঁর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা ঝুলছে। এই বিষয়ে বিমল গুরুংয়ের নাম না করে রাজ্য সরকারকে কটাক্ষ করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। তিনি বলেন, ''আইন সকলের জন্য সমান হওয়া উচিত। অথচ, আইনকে মান্যতা দিতে পারছেন রাজ্যের শাসক দল''। বিস্ফোরক মন্তব্য রাজ্যপালের।

আরও পড়ুন-রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা ভাঙলেই, তখনই আমার হস্তক্ষেপ, বিস্ফোরক মন্তব্য রাজ্যপালের

তিনি আরও বলেন, ''কুড়ি বছর ধরে পাহাড়ে পঞ্চায়েত নির্বাচন না হওয়ায় সংবিধানের অবমাননা করা হয়েছে। তবে এখনই পাহাড় নিয়ে বেশি কিছু বলব না। তবে পাহাড়ে স্থায়ী সমাধানের প্রয়োজন রয়েছে। এখানে শান্তির বাতাবরণ তৈরির জন্য স্থায়ী সরকারি পদক্ষেপের প্রয়োজন রয়েছে। সেই সমস্য়ার সমাধান রাজ্যের কাছে খুঁজে লাভ নেই। কেন্দ্রের কাছে রয়েছে।  ৩৭০ ধারা বিলোপ, তিন তালাক, রাম মন্দির সহ বড়বড় সমস্যার সমাধান করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। সেখানে পাহাড়ের সমস্যা কেন্দ্রীয় সরকার সমাধান করতে পারে। ভারতীয় সংবিধানে সব সমস্য়ার সমাধান রয়েছে''। বললেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়।