হায়দরাবাদ কাণ্ডের পর বিপদে পড়লে এখন মহিলাদের সাহায্য করতে চাইছেন অনেকেই।  ফোন নম্বর-সহ 'অভয় বার্তা' ঘুরছে ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। আর এবার সেই তালিকা নাম লেখালেন খোদ পরিবহণমন্ত্রীর শুভেন্দু অধিকারীর ভাইপো দেবদীপও।  তাঁর বক্তব্য, 'সমাজের এক নাগরিক হিসেবে মহিলাদের আশ্বস্ত করতে চাই, আমি আপনাদের পাশে আছি। বিপদে পড়লে আমাকে ফোন করুন। আমি প্রথমে থানায় খবর দেব। প্রয়োজন হলে নিজে এলাকায় গিয়ে সাহস জোগাব। '

দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র দেবদীপ। পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথিতে দাদু তৃণমূল সাংসদ শিশির অধিকারীর বাড়িতে থাকে সে। রবিবার কাঁথিরই বাসিন্দা কৃশানু ভট্টাচার্য নামে এক যুবক নিজের ফোন নম্বর-সহ তৃণমূল নেতার নাতির নম্বরও ফেসবুকে আপলোড করেন। ফেসবুকে কৃশানু লিখেছেন, 'আমি কাঁথিতে থাকি। বাড়ির পথে যদি কোনও মহিলা বিপদে ফোন করুন। এটা আমাদের দায়িত্ব। আমাদের সকলকে একটি যোগসূত্র তৈরি করা হবে, যাতে একসঙ্গে সহজে কাজটা করা যায়। ' ওই পোস্টে দেবদীপ ও কৃশানু ছাড়াও আরও তিনজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।  কৃশানুর পোস্টটি আবার নিজের ওয়ালে শেয়ারও করেছেন শুভেন্দু অধিকারীর ভাইপো। 

উল্লেখ্য, মহিলাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে তৎপর পূর্ব মেদিনীপুর জেলা পুলিশও।  এক আধিকারিক জানিয়েছেন,  মহিলাদের নিরাপত্তা সংক্রান্ত যেকোনও অভিযোগ গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করা হয়। প্রতিমাসে পুলিশ সুপারের দপ্তরে এই সংক্রান্ত প্রতিটি রিপোট যাচাই করে  দেখা হয়। এমনকী, এলাকার হাসপাতালগুলি যদি কোনও মহিলা হেনস্তার শিকার হন কিংবা কোনওরকম সমস্যায় পড়েন, সেক্ষেত্রে তথ্য পেলে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হয়। হায়দরাবাদ কাণ্ডের পর পূর্ব মেদিনীপুর জেলার সাধারণ মানুষও মহিলাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার উদ্যোগ নেওয়ায় খুশি জেলার পুলিশ আধিকারিকরা। 

জানা গিয়েছে, হলদিয়া শিলাঞ্চল ও দিঘার মতো পর্যটন কেন্দ্রে মহিলাদের সুরক্ষায় বছরভরই সাদা পোশাকে পুলিশকর্মীরাও মোতায়েন থাকেন। হলদিয়া ও কাঁথিতে একাধিক মহিলা থানাও চালু করেছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা পুলিশ।