সময় লাগল ১৫ বছর। এবার সকালেও রায়গঞ্জ থেকে কলকাতা যাওয়ার ট্রেন চালু হল। শনিবার সবুজ পতাকা নেড়ে নয়া এই ট্রেন পরিষেবার সূচনা করলেন রায়গঞ্জের সাংসদ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী। অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন রেল মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রীও। দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হওয়ায় খুশি স্থানীয় বাসিন্দারা।

আরও পড়ুন কামারহাটির প্রান্তিক নগরে বিধ্বংসী আগুন, ভস্মীভূত ১০টি বাড়ি

আরও পড়ুন: পিছু ছাড়ছে না আতঙ্ক, বৌবাজার বিপর্যয় ঠেকাতে আগাম ব্য়বস্থা মেট্রোর

রায়গঞ্জ থেকে কলকাতা পর্যন্ত রাতে যখন ট্রেন চালু হয়, তখন সকালেও ট্রেন চালু করার দাবি তুলেছিলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। মাঝে ১৫ বছরে গঙ্গা দিয়ে অনেক জল বয়ে গিয়েছে। কিন্তু ট্রেনের স্বপ্ন অধরাই থেকে গিয়েছে। অথচ লোকসভাই হোক কিংবা বিধানসভা, প্রতিটি নির্বাচনের আগেই রাজনৈতিকদলগুলির ইস্তেহারে কিন্তু 'সকালের ট্রেন' চালুর বিষয়টি উল্লেখ করা হত। ব্যতিক্রম ঘটেনি গত লোকসভা ভোটেও। ট্রেন চালুর প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল বিজেপি-এর ইস্তেহারে। রায়গঞ্জ থেকে জিতে কেন্দ্রীয় সরকারের মন্ত্রী হন গেরুয়াশিবিরের মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী। কিন্তু প্রতিশ্রুতি পূরণ না করায় রায়গঞ্জে বিক্ষোভের মুখে পড়েন সাংসদ। এরপরই সকালেও রায়গঞ্জ থেকে কলকাতা পর্যন্ত আরও একটি ট্রেন চালু করার কথা ঘোষণা করা হয় রেলের তরফে।

 

শনিবার কালিয়াগঞ্জ ব্লকের রাধিকাপুর স্টেশনে নতুন ট্রেনটিকে 'সবুজ সংকেত' দিলেন রায়গঞ্জের সাংসদ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী। ট্রেনটির পোশাকি নাম রাধিকাপুর-হাওড়া এক্সপ্রেস। রেল সূত্রে খবর, প্রতিদিন সকালে এগারোটা নাগাদ রাধিকাপুর স্টেশন থেকে ছাড়বে ট্রেনটি, রায়গঞ্জে পৌঁছবে দুপুর বারোটায়। রাতে ১১ টা নাগাদ ট্রেনটি পৌঁছে যাবে হাওড়ায়।  রায়গঞ্জ তো বটেই, সকালে ট্রেন চালু হওয়ায় উপকৃত হবে কালিয়াগঞ্জের মানুষ। উল্লেখ্য, এতদিন রায়গঞ্জ থেকে কলকাতা পর্যন্ত রাতে একটিই ট্রেন চলত। কিন্তু ভিড়ের চাপে সেই ট্রেনে কার্যত ওঠাই যেত না। ফলে বিপাকে পড়তেন যাত্রীরা।