ফের রাজ্যে এনআরসি আতঙ্কে আত্মহত্যার অভিযোগ উঠল।  এবার ঘটনাটি ঘটেছে,  রায়গঞ্জ থানার গৌরি গ্রামপঞ্চায়েতের নরম কলোনি গ্রামে। মৃত ওই ব্যক্তির নাম উদয় চন্দ্র দাস (৬৪)।  ইতিমধ্যেই মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালের পুলিশ মর্গে আনা হয়েছে। 

ওই ব্যক্তির পরিবারের অভিযোগ, রায়গঞ্জ থানার নরম কলোনি এলাকার বাসিন্দা উদয় চন্দ্র দাসের আধার কার্ড, রেশন কার্ড ও জমির দলিলে নাম ভুল থাকায় বেশ কিছুদিন ধরে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত ছিলেন। ভুল সংশোধন করার জন্য পঞ্চায়েত অফিস থেকে শুরু করে বিডিও অফিসেও গিয়েছিলেন উদয়বাবু। সব জায়গায় গিয়েও সংশোধন না করতে পেরে  তিনি ফিরে আসেন। কোথাও কোনও সুরাহা না হওয়ায় মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন তিনি। গতকাল উদয়বাবু ব্যাঙ্কে গিয়েছিলেন টাকা তুলতে। সেখানেও তিনি টাকা তুলতে পারেননি তার আধার কার্ডে নাম ভুল থাকায়। 

মৃতের পরিবার জানিয়েছে, উদয়বাবুর শুধু আধার কার্ডেই নাম ভুল ছিল তা নয়। তাঁর রেশন কার্ড,  বাড়ির  জমির দলিলেও নাম ভুল থাকায় দীর্ঘদিন ধরেই এনআরসি আতঙ্কে ভুগছিলেন তিনি। সোমবার রাতে খাওয়া দাওয়া করে নিজের ঘরে শুতে যান উদয়বাবু। মঙ্গলবার সকালে বাড়ি থেকে কিছুটা দুরে উদয়বাবুর ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পান স্থানীয় বাসিন্দারা। এই মৃত্যুর ঘটনা জানাজানি হতেই এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ। 

উদয়বাবুর মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালের পুলিশ মর্গে নিয়ে আসা হয়। মৃত উদয়বাবুর ছেলে উত্তম দাস জানিয়েছেন, বাবার আধার কার্ড, রেশন কার্ডে নামে ভুল থাকায় মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন। কাগজপত্রে নাম ভুল থাকায় তিনি এ দেশে থাকতে পারবেন না বলে আশঙ্কা করছিলেন তিনি। এই আতঙ্কেই উদয়বাবু আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন বলে ধারনা তার পরিবারের।